IQNA

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠককালে ইসলামী বিপ্লবের শীর্ষ নেতা
14:46 - April 23, 2019
সংবাদ: 2608398
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী পাকিস্তানের সঙ্গে তাঁর দেশের সম্পর্ককে হৃদ্যতাপূর্ণ ও গভীর উল্লেখ করে বলেছেন, এ সম্পর্ককে যতটা সম্ভব শক্তিশালী ও মজবুত করতে হবে।

বার্তা সংস্থা ইকনা: ইরান সফররত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সোমবার বিকেলে তেহরানে সর্বোচ্চ নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করনে। এসময় সর্বোচ্চ নেতা এ আহ্বান জানান।

আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী দু’দেশের সীমান্তে উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর নাশকতামূলক তৎপরতার কথা উল্লেখ করে বলেন, এসব সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দু’দেশের শত্রুদের অর্থ ও অস্ত্র সহযোগিতা পাচ্ছে এবং তাদের অন্যতম লক্ষ্য তেহরান-ইসলামাবাদ সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করা।

পাকিস্তান ও ইরানের সম্পর্ককে ঐতিহাসিক আখ্যা দিয়ে সর্বোচ্চ নেতা বলেন, মুসলিম শাসনামলে ভারতীয় উপমহাদেশ সর্বোচ্চ সম্মান ও মর্যাদার অধিকারী ছিল এবং ব্রিটিশ উপনিবেশবাদীরা মুসলিম সভ্যতা ধ্বংস করে এই উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় ক্ষতি করেছে।

তিনি ইরানের বন্যা দুর্গতদের জন্য সাহায্য পাঠানোয় পাক প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান এবং ইমরান খানের এ সফর দু’দেশের স্বার্থ রক্ষায় গঠনমূলক ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

ইরান ও ভারতের ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে ইমরান খান বলেন: মুসলমানেরা ভারতে ৬০০ বছর হুকুমত করেছে। তাদের উপর ইরানের প্রভাব এতটাই অধিক ছিল যে ভারতীয় শাসনের সরকারী ভাষা ফারসি ছিল।

সাক্ষাতে ভারতীয় উপমহাদেশ সম্পর্কে ইরানের সর্বোচ্চ নেতার বক্তব্য সমর্থন করে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ব্রিটিশরা এ উপমহাদেশের ভারতীয় উপমহাদেশের সম্পদ লুট করার পাশাপাশি এর শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে তাদের শিক্ষা ব্যবস্থা চাপিয়ে দিয়েছে এবং ভারতকে রত্নখচিত উপনিবেশ হিসেবে নামকরণ করেছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো কোনো মহল তেহরান ও ইসলামাবাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের বিরোধী। কিন্তু তা সত্ত্বেও দু’দেশের সম্পর্ককে অতীতের চেয়ে শক্তিশালী করতে সচেষ্ট হওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে ইমরান খান বলেন, তিনি বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয় বিষয়ে শলাপরামর্শের জন্য ইরান সরকারের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করবেন।   iqna

 

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য: