IQNA

16:12 - August 10, 2019
সংবাদ: 2609062
আন্তর্জাতিক ডেস্ক; ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সর্বোচ্চ নেতা হযরত আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী আল্লাহর ঘর বায়তুল্লাহ’র জিয়ারতকারী হাজিদের উদ্দেশে দেয়া এক বাণীতে সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলো এবং তাদের রিংলিডার আমেরিকার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করাকে নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর ঘাতক ও যুদ্ধবাজদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করারই নামান্তর বলে উল্লেখ করেছেন।

বার্তা সংস্থা ইকনা’র রিপোর্ট: তিনি বলেছেন, আমেরিকার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার অর্থ হবে দায়েশ ও মার্কিন ব্ল্যাকওয়াটারের মতো উগ্র সন্ত্রাসবাদীদের নিন্দা জানানো, শিশু হত্যাকারী ইহুদিবাদী সরকার ও এর সাহায্যকারী ও পৃষ্ঠপোষকতা দানকারীদের প্রতি মুসলিম উম্মাহর ঘৃণা প্রদর্শন এবং স্পর্শকাতর পশ্চিম এশিয়া ও উত্তর আফ্রিকা অঞ্চলে আমেরিকা ও তার সহযোগীদের যুদ্ধ বাধানোর অতৎপরতার নিন্দা জানানো। তিনি ফিলিস্তিন সংকটকে মুসলমানদের রাজনৈতিক তৎপরতার শীর্ষে স্থান দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, জালিম আমেরিকা ও তার সহযোগী বিশ্বাসঘাতক শাসকেরা ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ নামের যে ধোঁকাবাজির ক্ষেত্র প্রস্তুত করছে তা গোটা মানব জাতির প্রতি একটি অপরাধ। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা শত্রুর এই প্রতারণা ভণ্ডুল করে দেয়ার জন্য সব মুসলমানের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ইনশা আল্লাহ ইসলামি প্রতিরোধ ফ্রন্টের ঈমান ও প্রচেষ্টার সামনে সাম্রাজ্যবাদীদের এই অপকৌশলসহ অন্যান্য ধোঁকাবাজি ব্যর্থ হবে।

সর্বোচ্চ নেতার হজবাণী:

 

بسم‌اللّه‌الرّحمن‌الرّحیم
والحمدللّه ربّ العالمین و صلّی اللّه علی رسوله الکریم الامین، محمّد خاتم النّبیّین، و علی آله المطهّرین سیّما بقیّة اللّه فی الارضین، و علی اصحابه المنتجبین و من تبعهم باحسان الی یوم الدّین

.
ওয়ালহামদুলিল্লাহি রাব্বিল আলামিন ওয়া সাল্লাল্লাহু আলা রাসুলিহিল কারিমাল আমিন, মুহাম্মাদ খতামুন্নাবিয়্যিন, ওয়া আলা আলিহিল মুতাহ্‌হিরিন সিমা বাকিয়াতুল্লাহি ফিল আরদিন, ওয়া আলা আসহাবিল মুনতাজাবিন ও মিন তাবেয়া’হুম বিইহসান ইলা ইয়াওমিদ্দিন।
মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে তার বান্দাদের জন্য আশীর্বাদস্বরুপ প্রতি বছর হজ্জের মৌসুমের আগমন হয় । পবিত্র কুরআনে বর্ণনা করা হয়েছে « وَ اَذِّن فِي النّاسِ بِالحَج» ‘ওয়া আযযিন ফিন্নাসি বিলহাজ’ (এবং মানুষের মধ্যে হজ্জের ঘোষণা করে দাও) বলে যে আহ্বান জানিয়েছে তার মাধ্যমে ইতিহাসের দীর্ঘ পরিক্রমায় এই রহমতের বিছানায় আসন গ্রহণ করার জন্য সকলের প্রতি আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। খোদাপ্রেমিকদের অন্তর এবং প্রজ্ঞাবানদের দৃষ্টি ও চিন্তাশক্তি এই আহ্বানে সাড়া দেয়। প্রতি বছর হজ পালনকারী ব্যক্তিদের মাধ্যমে হজের শিক্ষাগুলো সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।
হজ্জের যিকিরসমূহ ও উপাসনা যা ব্যক্তি ও সমাজ গঠন ও অগ্রগতির মূল উপাদান। হজ্জে বিশ্বের মুসলমানেরা একত্রিত হয়, আর এটি উম্মতের ঐক্যের প্রতীক। হজ্জে হাজিদের মধ্যে সাধারণত কোন প্রকার বৈষম্য পরিলক্ষিত হয় না, এটি বৈষম্য দূরীকরণ এবং সুযোগসমূহ সাধারণীকরণের লক্ষণ। হজ্জ, ইসলামী সমাজের মূল ভিত্তিগুলোর একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ। হজ্জের প্রত্যেকটি আমল –এহরাম বাধা, তাওয়াফ করা, সায়ি, উকুফ এবং রামি (পাথর নিক্ষেপ করা)সহ অন্যান্য আমলসমূহ হাজিগণ স্বয়ং নিজে আঞ্জাম দেন, যা ইসলাম তার অনুকূল সম্প্রদায়ের জন্য নির্ধারণ করেছে।
হজ্জের গুরুত্বপূর্ণ অর্জন হচ্ছে, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হজ্জে যাওয়া হাজিদের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বিনিময়, জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা প্রসারিত করা এবং একে অপরের পরিস্থিতি জেনে রাখা। এছাড়াও এর মাধ্যমে হাজিগণ নিজেদের মধ্যে ভ্রান্তি ধারণাগুলো দূর করে পারস্পরিক হৃদয়কে নিকটবর্তী করেন যা গুরুত্বপূর্ণ অর্জন ও কৃতিত্ব। এই অর্জন ও কৃতিত্ব অন্য কোন সাধারণ অনুষ্ঠান থেকে অর্জন করা সম্ভব নয়।
বাড়ায়াত অর্থাৎ যে কোন সময়ে সমস্ত নিষ্ঠুরতা ও নিপীড়ন, কদর্যতা ও দুর্নীতির প্রতি ঘৃণা পোষণ করে সকল অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে রুখে দাঁড়ানো। এটি হজ্জের একটি মহৎ বরকত এবং মজলুম জনতার জন্য একটি বড় সুযোগ। বর্তমানে শিরক ও কুফর যার শীর্ষে রয়েছে আমেরিকা, আর এর বিরুদ্ধে বাড়ায়াত প্রচলন করতে হবে। অর্থাৎ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যুদ্ধ সৃষ্টি করে নিরীহ ও মজলুম মানুষদের নির্মমভাবে হত্যা করছে। আর এর বিরুদ্ধ ঘৃণা পোষণ করে প্রতিবাদ করতে হবে। বর্তমানে গঠিত হওয়া বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী যেমন: দায়েশ (আইএস) এবং আমেরিকার ব্ল্যাকওয়াটারের বিরুদ্ধে নিন্দা পোষণ করা। বাড়ায়াত অর্থাৎ শিশু হত্যাকারী যায়নবাদী এবং তাদের শাসনব্যবস্থাকে যারা সমর্থন ও সাহায্য করছে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা। বাড়ায়াত অর্থাৎ পশ্চিম এশিয়া এবং উত্তর আফ্রিকার সংবেদনশীল অঞ্চলে মার্কিন যুদ্ধ সহায়ক এবং তাদের সহায়তাকারীদের নিন্দা জানানো। এসকল দেশে যুদ্ধ সৃষ্টি হওয়ার ফলে জনগণরা দুর্ভোগের শীর্ষে পৌঁছেছে এবং দৈনিক তাদের উপর ভয়াবহ বিপর্যয় দেখা দিচ্ছে। বাড়ায়াত অর্থাৎ বর্ণবাদী ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো। ইসলাম, এসকল অন্যায় ও অত্যাচারের প্রতিবাদ জানাতে সকলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে।
এগুলো ইব্রাহিমী হজ্জের কিছু অংশ যা খাঁটি ইসলাম আমাদেরকে আহ্বান করেছে। এটি এমন একটি প্রতিমূর্তির প্রতীক যা ইসলামী সমাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ আদর্শ। যা প্রতি বছর মুসলিম জনগণের দ্বারা হজ্জ পরিচালকদের মধ্যমে পরিলক্ষিত হয় এবং অলঙ্কৃত ভাষায়, সকলকে এমন একটি সমাজ গঠনের জন্য প্রচেষ্টা করার আহ্বান জানায়।
ইসলামী বিশ্বের বিজ্ঞ ব্যক্তিগণ, যার কিছু অংশ বর্তমানে হজ্জ পালন করছেন, তাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও বিপজ্জনক দায়িত্ব রয়েছে। এই শিক্ষাগুলো তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা এবং উদ্যোগের মাধ্যমে বিশ্বের সকল দেশের জনগণের মধ্যে প্রচার ও বিস্তার ঘটাতে হবে। সকলের মধ্যে আধ্যাত্মিক চিন্তাভাবনা, অনুপ্রেরণা, অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান বিনিময় করতে হবে।
ফিলিস্তিনের ইস্যুটি বর্তমানে ইসলামী বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এই বিষয়টি প্রত্যেক ধর্ম, বর্ণ এবং জাতির সাথে মুসলমানদের রাজনৈতিক ইস্যুর শীর্ষে অবস্থান করছে। বিগত কয়েক শতাব্দীর মধ্যে ফিলিস্তিনে বৃহত্তম নিষ্ঠুরতা পরিলক্ষিত হয়েছে। এই বেদনাদায়ক ইভেন্টে, একটি জাতির সমস্ত কিছু - জমি, বাড়ি, খামার, সম্পত্তি, মর্যাদা এবং পরিচয় - বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। মহান আল্লাহর অশেষ কৃপায় এই জাতি পরাজয়কে মেনে নেয়নি এবং বিন্দু মাত্র পিছু পা হয়নি। ফিলিস্তিনিরা পূর্বের তুলনায় বর্তমানে আরও শক্তিশালী ও সাহসী হয়েছে। তবে এর ফলাফলের জন্য সকল মুসলমানদের সমর্থনের প্রয়োজন রয়েছে। অত্যাচারী আমেরিকা এবং তাদের বিশ্বাসঘাতক সহযোগীদের দ্বারা পরিচালিত শতাব্দীর চুক্তির কৌশলটি শুধুমাত্র ফিলিস্তিনি জনগণের বিরুদ্ধে নয়; বরং মানবসমাজ বিরুদ্ধে একটি জঘন্য অপরাধ এবং চক্রান্ত। তাদের এই চুক্তির বিরুদ্ধে আমরা সকলকে সক্রিয়ভাবে উপস্থিত হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। আমরা শত্রুদের দাম্ভিকতা এবং চক্রান্তকে নিন্দা জানায় এবং তাদের সকল চক্রান্তকেই আমরা পরাজিত করবো।


قال اللّه العزیز: اَم يُ‍ريدونَ كَيدًا فَالَّذينَ كَـفَروا هُمُ ال‍مَكيدون. صدق اللّه العلیّ العظیم


মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে এরশাদ করেছেন: অথবা তারা কি কোন চক্রান্ত করতে চায়? (স্মরণ রেখ) অবিশ্বাসীরাই চক্রান্তের শিকারে পরিণত হবে।
সম্মানিত সকল হাজিদের সুস্বাস্থ্য, সমৃদ্ধি, রহমত, সাফল্য এবং ইবাদত কাবুলের জন্য মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া প্রার্থনা করি।

সাইয়্যেদ আলী খামেনেয়ী

১৪ই মোরদাদ, ১৩৯৮ (ফার্সি) সাল মোতাবেক
৩য় জ্বিলহাজ, ১৪৪০ বা ৫ম আগস্ট ২০১৯

iqna

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য: