IQNA

সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ:
12:37 - August 17, 2019
সংবাদ: 2609089
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আমেরিকার সিদ্ধান্তে লেবাননের বিরুদ্ধে ৩৩ দিনের যুদ্ধ সংগঠিত হওয়ার ব্যাপারে হিজবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ গুরুত্বারোপ করে বলেছেন: ৩৩ দিনের যুদ্ধের মূল উদ্দেশ্য ছিল একটি নতুন মধ্য প্রাচ্য গঠন করা এবং আফগানিস্তান ও ইরাকে মার্কিন আক্রমণকে পরিপূরক করা।

বার্তা সংস্থা ইকনা'র রিপোর্ট: লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছে, ইরানের বিরুদ্ধে কেউ আগ্রাসন চালালে গোটা মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধের আগুন জ্বলে উঠবে। ইরানের বিরুদ্ধে হামলা হলে গোটা প্রতিরোধ শক্তি যুদ্ধের ময়দানে হাজির হবে বলেও সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছে হিজবুল্লাহ।

সংগঠনের মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ ইসরাইলের বিরুদ্ধে ২০০৬ সালের ৩৩ দিনের যুদ্ধে বিজয়ের ১৩তম বার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল (শুক্রবার) এক ভাষণে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। তিনি বলেন, ইরান আমেরিকার গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করে এবং ব্রিটেনের তেল ট্যাংকার আটক করে নিজের সাহসিকতার প্রমাণ দিয়েছে।

ইরানের বিরুদ্ধে আগ্রাসন চালাতে গিয়েও আমেরিকার থেমে যাওয়াকে তেহরানের একটি বিশাল অর্জন বলে উল্লেখ করে সাইয়্যেদ নাসরুল্লাহ। তিনি বলেন, এখান থেকে বোঝা যায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কিছুটা হলেও ইরানের সামরিক শক্তি আঁচ করতে পেরেছেন।

ইহুদিবাদী ইসরাইল, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত’সহ আরো কিছু আঞ্চলিক দেশ মধ্যপ্রাচ্যকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দেয়ার চেষ্টা করছে বলে উল্লেখ করেন হিজবুল্লাহ মহাসচিব। তিনি বলেন, ইয়েমেন ও সিরিয়ায় যুদ্ধ বন্ধের চেষ্টা করার পাশাপাশি লেবানন ও ইরাকে স্থিতিশীলতা বজায় রাখার চেষ্টা করছে হিজবুল্লাহ।

হিজবুল্লাহ বর্তমানে একটি আঞ্চলিক শক্তিতে পরিণত হয়েছে জানিয়ে সংগঠনটির মহাসচিব ইহুদিবাদী ইসরাইলকে উদ্দেশ করে বলেন, ইসরাইলি সেনারা লেবাননে অনুপ্রবেশ করলে তাদেরকে হত্যা করার দৃশ্য টেলিভিশনে লাইভ সম্প্রচার করা হবে।   iqna

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য: