IQNA

9:44 - September 05, 2019
সংবাদ: 2609202
বয়সের ভার এখনো কাহিল করতে পারেনি নরসিংদীর জয়নাবেন নেছাকে। বয়স ১২০ বছর। ১৮৯৫ সালে তার জন্ম। এখনো অনেক ৫০-৬০ বছর বয়স্ক মানুষের চেয়ে বেশি সুস্থ বলা যায় জয়নাবেন নেছাকে। চশমা ছাড়াই পড়তে ও লিখতে পারেন তিনি। দৈনিক ৫ ওয়াক্ত নামাজ ও কোরআন তিলাওয়াত করেন। সম্পূর্ণ স্বাভাবিকভাবে জীবনযাপন করছেন নরসিংদীর পুরানদিয়া গ্রামে ১৮৯৫ সালে জন্ম নেয়া জয়নাবেন নেছা।‘নিয়মিত কোরআন পাঠ করার কারনেই আল্লাহ আমার চোখের দৃষ্টি শক্তি অক্ষুন্ন রেখেছেন’

বার্তা সংস্থা ইকনা'র রিপোর্ট: ১৯০৮ সালে একই গ্রাম পুরানদিয়ার জিন্নত আলীর সাথে তার বিয়ে হয়। জয়নাবেন নেছার স্বামী আর বেচে না থাকলেও এখনো সুস্থ্যভাবে জীবনযাপন ও স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করছেন তিনি। জয়নাবেন নেছা আল্লাহর দরবারে লাখ লাখ শুকরিয়া আদায় করে জানায়, “আমি অনেক ভালো আছি। এখনো খালি চোখে পড়তে ও লিখতে পারি। সবসময় আল্লাকে স্মরণ করি ও কোরআন পাঠ করি। কোরআন পাঠ করার কারনেই আল্লাহ আমার চোখের দৃষ্টি শক্তি অক্ষুন্ন রেখেছেন।”‘নিয়মিত কোরআন পাঠ করার কারনেই আল্লাহ আমার চোখের দৃষ্টি শক্তি অক্ষুন্ন রেখেছেন’
‘নিয়মিত কোরআন পাঠ করার কারনেই আল্লাহ আমার চোখের দৃষ্টি শক্তি অক্ষুন্ন রেখেছেন’

ইসলাম ডেস্ক: বয়সের ভার এখনো কাহিল করতে পারেনি নরসিংদীর জয়নাবেন নেছাকে। বয়স ১২০ বছর। ১৮৯৫ সালে তার জন্ম। এখনো অনেক ৫০-৬০ বছর বয়স্ক মানুষের চেয়ে বেশি সুস্থ বলা যায় জয়নাবেন নেছাকে। চশমা ছাড়াই পড়তে ও লিখতে পারেন তিনি। দৈনিক ৫ ওয়াক্ত নামাজ ও কোরআন তিলাওয়াত করেন। সম্পূর্ণ স্বাভাবিকভাবে জীবনযাপন করছেন নরসিংদীর পুরানদিয়া গ্রামে ১৮৯৫ সালে জন্ম নেয়া জয়নাবেন নেছা।

১৯০৮ সালে একই গ্রাম পুরানদিয়ার জিন্নত আলীর সাথে তার বিয়ে হয়। জয়নাবেন নেছার স্বামী আর বেচে না থাকলেও এখনো সুস্থ্যভাবে জীবনযাপন ও স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করছেন তিনি। জয়নাবেন নেছা আল্লাহর দরবারে লাখ লাখ শুকরিয়া আদায় করে জানায়, “আমি অনেক ভালো আছি। এখনো খালি চোখে পড়তে ও লিখতে পারি। সবসময় আল্লাকে স্মরণ করি ও কোরআন পাঠ করি। কোরআন পাঠ করার কারনেই আল্লাহ আমার চোখের দৃষ্টি শক্তি অক্ষুন্ন রেখেছেন।” এমটি নিউজ২৪

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য: