IQNA

4:45 - May 22, 2020
সংবাদ: 2610824
তেহরান (ইকনা): আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইলের আকাঙ্ক্ষার বিপরীতে কুদস দিবসে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সর্বোচ্চ নেতার ভাষণ ফিলিস্তিন সমস্যাকে মুসলিম বিশ্বের প্রধান গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে পরিণত করবে। এ মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি মাজিদ তাখতে রাভানচি।

তিনি ইরানের বার্তা সংস্থা ইরনাকে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে বলেন, আমেরিকা যখন ফিলিস্তিন বিষয়ক কথিত শতাব্দির সেরা চুক্তি বাস্তবায়নে নেমে পড়েছে এবং পশ্চিম তীরের আরো বেশি ভূখণ্ড ইহুদিবাদী ইসরাইলের অন্তর্ভুক্ত করার প্রক্রিয়া চলছে তখন এ গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দিতে যাচ্ছেন সর্বোচ্চ নেতা। তিনি তাঁর ভাষণে ফিলিস্তিন প্রসঙ্গে ইরানসহ গোটা মুসলিম বিশ্বের অবস্থান তুলে ধরবেন যা বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হবে।

দখলদার ইহুদিবাদীরা ফিলিস্তিনি জনগণকে তাদের পিতৃপুরুষদের ভিটেমাটি থেকে উচ্ছেদ করেছে জানিয়ে তাখতে রাভানচি বলেন, এই গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক সত্যটি বিশ্ববাসীর সামনে বারবার তুলে ধরতে হবে যাতে নির্যাতিত ফিলিস্তিনি জাতির প্রতি বিশ্বজনমতের সমর্থন প্রবল হয়।

ইসলামি ইরানের স্থপতি ইমাম খোমেনী (রহ.) ১৯৭৯ সালে রমজান মাসের শেষ শুক্রবারকে বিশ্ব কুদস দিবস হিসেবে পালন করার আহ্বান জানান। তখন থেকে প্রতিবছর এ দিবস পালিত হয়ে আসছে। যতদিন দখলদার ইহুদিবাদীদের কবল থেকে আল-আকসা মসজিদ সমৃদ্ধ বায়তুল মুকাদ্দাস বা আল-কুদস শহর মুক্ত না হচ্ছে ততদিন প্রতিবছর এ দিবস পালনের আহ্বান জানানো হয়। চলতি বছর ২২ মে (আগামীকাল) শুক্রবার বিশ্ব কুদস দিবস পালন করা হবে।#
সূত্র: পার্সটুডে

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: