IQNA

আশুরা; মুক্তি সংগ্রামের প্রেরণা

14:50 - August 14, 2022
সংবাদ: 3472289
তেহরান (ইকনা): দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক ব্যবস্থা এবং ভ্রান্ত শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে প্রতিরোধের জন্য আশুরা একটি ব্যতিক্রমী ও অনন্য নমুনা। নতুন যুগে, মুসলিম মুক্তিবাহিনী এমনকি গান্ধীর মতো যারা মুক্তি আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, তারা আশুরার ঘটনা থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছেন।

ধর্মীয় গবেষক এবং মুফিদ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমিন সাইয়্যেদ আলী মির মুসাভি সম্পর্কে বার্তা সংস্থা ইকনা’র সাথে এক সাক্ষাতকারে আশুরার প্রবহমান ঘটনার আলোকে আলোকপাত করেছেন। তার এই আলোচনাটি নীচে তুলে ধরা হল:


ইকনা - বিশ্ব যে অসাম্প্রদায়িকতার দিকে অগ্রসর হচ্ছে এবং সমাজ ও আধুনিক মানুষ পরিচয়, নৈতিকতা এবং আধ্যাত্মিকতার সংকটের মতো অনেক সংকটের মুখোমুখি হচ্ছে সে বিবেচনায় আশুরার ঘটনা মানুষের মুক্তির জন্য কী ধরণের বার্তা প্রেরণ করে এবং এই সংকট থেকে আধুনিক সমাজ কীভাবে মুক্তি পেতে পারে?


দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক ব্যবস্থা এবং ভ্রান্ত শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে প্রতিরোধের জন্য আশুরা একটি ব্যতিক্রমী ও অনন্য নমুনা। নতুন যুগে, মুসলিম মুক্তিবাহিনী এমনকি গান্ধীর মতো যারা মুক্তি আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, তারা আশুরার ঘটনা হতে অনুপ্রাণিত হয়েছে। আশুরার প্রেক্ষাপটে প্রতিরোধ, স্বাধীনতা ও মুক্তির নৈতিকতা স্পষ্ট। আধুনিক মানুষের জন্য আশুরার বাণী হলো প্রতিরোধ, মুক্তি ও মুক্তির নীতিবোধ। ইমাম হুসাইন (আ.)-এর অভ্যুত্থান কখনই আকস্মিক এবং সহিংস আন্দোলন ছিল না, তবে ইমাম যুদ্ধ ও সহিংসতা প্রতিরোধের সমস্ত ব্যবস্থার কথা ভেবেছিলেন তা সত্ত্বেও, তিনি তখনই তলোয়ার হাতে নিয়েছিলেন যখন তিনি দুটি বিকল্পের একটি বেছে নিতে বাধ্য হন। আর তা হল অপমান ও শাহাদাতের পথ। এই দুটি পথের মধ্যে তিনি অপমানকে গ্রহণ না করে শাহাদাতের পথ বেছে নিয়েছেন।


ইকনা - আশুরার ঘটনাকে কীভাবে ইউটোপিয়ান ধারণার দৃষ্টিভঙ্গি এবং পদ্ধতির ভিত্তিতে বিশ্লেষণ করা হয়?


ইউটোপিয়া এবং আদর্শের আলোচনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইউটোপিয়া মানে একটি আদর্শ পরিস্থিতি আঁকা এবং বিদ্যমান পরিস্থিতির সমালোচনা করে একটি আদর্শ পরিস্থিতির দিকে পরিবর্তন করার লক্ষ্যে ইউটোপিয়া অনুসন্ধান করা। ইউটোপিয়া সর্বদা বিপ্লবী শক্তির উদ্বেগ ছিল এবং বিপ্লব সর্বদা ইউটোপিয়ার হৃদয় থেকে এসেছে। অন্যদিকে, ইউটোপিয়ার বিরুদ্ধে মতাদর্শ অবস্থান করছে। মতাদর্শ হল ব্যাখ্যা যা ক্ষমতা কাঠামো বাস্তবতা প্রদান করে এবং ক্ষমতার ক্রিয়াকলাপকে ন্যায্যতা দেওয়ার জন্য প্রস্তাবিত হয়। আশুরার ঘটনা সম্পর্কে, একটি ইউটোপিয়ান দৃষ্টিভঙ্গি এবং একটি আদর্শিক দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে।
ইউটোপিয়ান দৃষ্টিভঙ্গিতে ইমাম হুসাইন (আ.)-এর অভ্যুত্থানকে বিদ্যমান পরিস্থিতির প্রতিবাদ এবং শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠিত ও বিপ্লবের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের নমুনা হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে এবং বিরোধী স্রোতকে ইয়াজিদি স্রোত হিসেবে চিত্রিত করা হয়েছে। আর এর ভিত্তিতে এর বিরুদ্ধে লড়াই করা ন্যায়সঙ্গত। বিপরীতে, আদর্শিক দৃষ্টিভঙ্গি বর্তমান পরিস্থিতিকে ন্যায্যতা দেওয়ার জন্য ইমাম হুসাইন (আ.)-এর এক ধরনের ঐতিহাসিক অনুকরণ ব্যবহার করেন। এটা মনে হয় যে উভয় ধরনের ব্যাখ্যা সঠিক। তবে, ইউটোপিয়ান ব্যাখ্যা নিঃসন্দেহে আদর্শিক ব্যাখ্যা থেকে উত্তম।
কর্তব্য-ভিত্তিক ব্যাখ্যায়, ঐতিহাসিক অবস্থার পার্থক্যের কারণে, এই আন্দোলনের অনুপ্রেরণামূলক এবং অনুকরণীয় দিক বিবেচনা করা হয়। এই দৃষ্টিকোণ থেকে ইমাম হুসাইন (আ.)-এর অভ্যুত্থানকে একটি অনিবার্য দায়িত্বের পরিপূর্ণতা হিসেবে দেখা হয় যা একটি বিশেষ ঐতিহাসিক পরিস্থিতিতে তাঁর কাঁধে ফরজ দায়িত্ব হিসেব ছিল। যারা এই বিপ্লবের ব্যাপারে ইমামকে ব্যর্থতার সম্ভাবনার বার্তা দিয়েছেন, ইমাম তাদেরকে এই দায়িত্ব সম্পর্কে সদয়ভাবে সতর্ক করেছেন। ইমাম হুসাইনের (আ.) আন্দোলন মানবজাতির ইতিহাসে অনন্য এই কারণে যে তিনি এ ধরনের দায়িত্ব পালনের পথে কোনো ধরনের আত্মত্যাগ থেকে বিরত থাকেননি। যদিও ইমাম তার ক্রিয়াকলাপকে যতটা সম্ভব কম ব্যয়বহুল করার চেষ্টা করেছেন, তিনি অপমান ও শাহাদাতের মধ্যে উত্তম পথ অর্থাৎ শাহাদাতের পথ বেছে নিয়েছেন। সমসাময়িক যুগে যারা মুক্তিকামী দায়িত্ব পালনে মূল্য দিয়েছেন তাদের অনেকেই আশুরাকে এই দৃষ্টিভঙ্গি থেকে অনুপ্রেরিত হয়েছেন।

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha