IQNA

সাইয়্যেদুশ শোহাদা (আ.)-এর সাথে সামাজিক জীবন/৩

ইমাম হুসাইন (আ.)এর নিকট নামাজের মাধুর্য

0:02 - September 21, 2022
সংবাদ: 3472507
তেহরান (ইকনা): উদ্দেশ্য এবং প্রেরণা মানুষের চরিত্র নির্ধারণ করে। ইমাম হুসাইন (আ.) নামাজের মাধুর্য আস্বাদন করার ও অন্যদের আস্বাদন করানোর মাধ্যমে তার জীবনের উদ্দেশ্য এবং তার আন্দোলনের পথ দেখিয়েছেন।
হুসাইনের (আ.) আরবাইন দিবস উপলক্ষে কুরআন বিশেষজ্ঞ হুজ্জাতুল ইসলাম সাইয়্যেদ জাভেদ বেহেশতীর "সাইয়্যেদুশ শোহাদা (আ.)এর সাথে সামাজিক জীবন" নামক শীর্ষক বৈঠকে বলেন: বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের ইমাম হুসাইন (আ.)এর আদর্শ গ্রহণ করতে হবে। 
উদ্দেশ্য এবং প্রেরণা মানুষের চরিত্র নির্ধারণ করে। ইমাম হুসাইন (আ.)এর  বিপ্লব করার উদ্দেশ্য কি ছিল? এর উত্তর অতি পরিষ্কার; যে সাত মাসে তারা মদীনা থেকে মক্কা এবং মক্কা থেকে কারবালা পর্যন্ত যাত্রা করেছিল, তারা কেবল মাহান আল্লাহর জন্যই করেছেন। তিনি তার সমস্ত সিদ্ধান্তকে নামাযের সাথে সম্পর্কিত করেছিলেন। আর এজন্য তিনি অযু করলেন এবং দুই রাকাত সালাত আদায় করলেন এবং তারপর তার অবস্থান ঘোষণা করলেন।
যখন তারা মক্কা ত্যাগ করেন, তখন তারা তাদের কাফেলার মুয়াজ্জিন হিসেবে এক ব্যক্তিকে নামাযের জন্য আযান দেওয়ার ঘোষণা দেন। রেওয়ায়েতে বর্ণিত আছে যে, ৬১ হিজরির মহররম মাসের ৯ তারিখের দিনে যুদ্ধ হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু ইমাম হুসাইন (আ.) তার ভাই হযরত আবুল ফজল আল-আব্বাসকে (আ.) শত্রুদের সাথে আলোচনার জন্য পাঠিয়েছিলেন, যাতে যুদ্ধ একদিনের জন্য বিলম্বিত হয়। ? কারণ ইমাম হোসাইন (আ.) সেদিন বলেছিলেন:
إِنّی قد کنت أَحِبُّ الصَّلاةَ 
“আমি নামাজকে ভালোবাসি... আমি আমার জীবনের শেষ রাতটি নামাজ আদায় করে কাটাতে চাই।"
আশুরার সকালে, তারা নামাযের জন্য আযান দেন এবং জামাতে নামায আদায় করেন এবং আবু ছামামাহ সাঈদীকে ধন্যবাদ জানায় যিনি তাদের দুপুরের নামাযের সময় মনে করিয়ে দিয়েছিলেন এবং তারা শত্রুর তীরবর্ষণের সামনে আশুরার দুপুরের নামায আদায় করেছিলেন। আমাদের সকলের, -যাঁরা আরবাইনের মিছিলে উপস্থিত আছেন বা যারা এখনও জীবিত আছেন, - নামাজ সম্পর্কে সাইয়্যেদুশ শোহাদা থেকে অনুপ্রেরণা নেওয়া উচিত।
নবী করিম (সা.) অন্য একটি উদাহরণ দিয়ে নামাজের প্রতি তার আগ্রহ ব্যাখ্যা করেন এবং বলেন:
جَعَلَ اللَّهُ جَلَّ ثَنَائُهُ قُرَّةَ عَیْنِی فِی الصَّلوةِ وَ حَبَّبَ اِلَیَّ الصَّلَوةَ کَمَا حَبَّبَ اِلَی الْجَائِعِ الطَّعَامَ وَ اِلَی الظَّمْآنِ الْمَاءَ وَ اِنَّ الْجَائِعَ اِذَا اَکَلَ شَبِعَ وَ اِنَّ الظَّمْآنَ اِذَا شَرِبَ رَوِیَ وَ اَنَا لا اَشْبَعُ مِنَ الصَّلَوةِ
সর্বশক্তিমান আল্লাহ নামাজের মধ্যে আমার চোখের উজ্জ্বলতা রেখেছেন এবং নামাজকে আমার হৃদয়ে প্রিয় করে তুলেছেন; ঠিক যেমন ক্ষুধার্ত ও তৃষ্ণার্ত হৃদয়ে তিনি যেমন খাদ্য ও পানিকে প্রিয় করে তুলেছিলেন। ক্ষুধার্ত ব্যক্তি আহার করলেই তৃপ্ত হবে এবং তৃষ্ণার্ত ব্যক্তি পানি পান করলে তৃপ্ত হবে। কিন্তু আমি কখনোই পর্যাপ্ত নামাজ আদায়ের মাধ্যমে পরিতৃপ্ত হবো না (অর্থাৎ যতই নামাজ আদায় করি না কেন, নামাজের প্রতি আমার আগ্রহ বিন্দুমাত্র কমবে না)।
 
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha