IQNA

 কুরআন কি বলে/২৪

মধ্যমপন্থা; কুরআনের দৃষ্টিকোণ থেকে সংশোধনের নিয়ম

15:58 - August 13, 2022
সংবাদ: 3472284
তেহরান (ইকনা): সমাজে মধ্যপন্থা পরিত্যাগের অন্যতম কারণ হচ্ছে দুর্নীতি ও ধ্বংস। "অতিরিক্ততা" নামক একটি আচরণের প্রস্তাব ও নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে পবিত্র কুরআন মানুষের জন্য একটি দিকনির্দেশনা নির্ধারণ করেছে, যা সামাজিক সংস্কারের দিকে নিয়ে যায় এবং সমাজে ভারসাম্য ও সমৃদ্ধি প্রতিষ্ঠা করে।

ইসলামী জীবনধারায় ভারসাম্য ও মধ্যপন্থার একটি বিশেষ স্থান রয়েছে। জীবনের এই দক্ষ উপাদানটি বুঝতে, এমন একটি ভারসাম্যের সামনে দাঁড়িয়ে কুরআনে "অতিরিক্ততা" শব্দের ব্যবহার আমাদের সাহায্য করে। "অতিরিক্ততা" মানে বাড়াবাড়ি এবং মধ্যপন্থার আধিক্য, এটি একটি বিস্তৃত ধারণা যা পবিত্র কুরআনে ২৩ বার ব্যবহৃত হয়েছে এবং এটি সরাসরি দুর্নীতির ধারণার সাথে সম্পর্কিত:
إِنَّهُ لَا يُحِبُّ الْمُسْرِفِينَ
মহান আল্লাহ অপচয়কারীদের ভালবাসেন না। 
সূরা আ’রাফ, আয়াত: ৩১। 
আল্লাহ যে কারণে অপচয়কারীদের তার ভালবাসার বৃত্তের বাইরে বিবেচনা করেন, এর কারণ হলো ভারসাম্য বিঘ্নিত করার অর্থ হলো দুর্নীতি সৃষ্টি করা। অপব্যয় মানুষের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ও সম্পদকে ধ্বংস করে এবং কখনও কখনও অন্যদের জন্য কিছুর অভাব ঘটায়।
কিছু ধরনের অপব্যয়
১ - সামাজিক বাড়াবাড়ি
وَلَا تُطِيعُوا أَمْرَ الْمُسْرِفِينَ الَّذِينَ يُفْسِدُونَ فِي الْأَرْضِ وَلَا يُصْلِحُونَ
এবং সীমালঙ্ঘনকারীদের নির্দেশের অনুগত হয়ো না, যারা পৃথিবীতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এবং (নিজেদের সংশোধন ও) সংস্কার করে না।’
সূরা শুআরা, আয়াত: ১৫১ ও ১৫২। 
রক্তপাত, বাড়াবাড়ি, দাম্ভিকতা এবং অতিরঞ্জিত সহ যেকোনো ধরনের সামাজিক দুর্নীতিকে সমাজের ভারসাম্য বিপর্যস্ত এবং বিরোধ, দ্বন্দ্ব এবং সামাজিক চ্যালেঞ্জের ইন্ধন হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে।
২. বুদ্ধিবৃত্তিক বাড়াবাড়ি
كَذَلِكَ يُضِلُّ اللَّهُ مَنْ هُوَ مُسْرِفٌ مُرْتَابٌ
আল্লাহ সীমালংঘনকারী, সংশয়ী ব্যক্তিকে পথভ্রষ্ট করেন। 
সূরা গাফির, আয়াত: ৩৪।
৩. আচরণগত বাড়াবাড়ি
«قلْ يَا عِبَادِيَ الَّذِينَ أَسْرَفُوا عَلَى أَنْفُسِهِمْ لَا تَقْنَطُوا مِنْ رَحْمَةِ اللَّهِ إِنَّ اللَّهَ يَغْفِرُ الذُّنُوبَ جَمِيعًا إِنَّهُ هُوَ الْغَفُورُ الرَّحِيمُ
বলুন, হে আমার বান্দাগণ যারা নিজেদের উপর যুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ সমস্ত গোনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।
সূরা যুমার, আয়াত: ৩৯।
৪. অন্যের অধিকারের প্রতি বাড়াবাড়ি
অন্য লোকের সম্পত্তি, বিশেষ করে এতিমদের সম্পদের অপব্যবহার করাকে বেয়াদবি হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং পবিত্র কুরআনে কঠোরভাবে এর নিষেধ করা হয়েছে।
وَابْتَلُوا الْيَتَامَى ... فَإِنْ آنَسْتُمْ مِنْهُمْ رُشْدًا فَادْفَعُوا إِلَيْهِمْ أَمْوَالَهُمْ وَلَا تَأْكُلُوهَا إِسْرَافًا وَبِدَارًا أَنْ يَكْبَرُوا وَمَنْ كَانَ غَنِيًّا فَلْيَسْتَعْفِفْ وَمَنْ كَانَ فَقِيرًا فَلْيَأْكُلْ بِالْمَعْرُوفِ
 
এবং ইয়াতিমদের পরীক্ষা করতে থাক যতক্ষণ না তারা বিবাহের উপযুক্ত হয়; যদি তাদের (চিন্তাশক্তি ও অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে) পরিণত অনুভব কর তবে তাদের সম্পদ তাদের হাতে অর্পণ কর; এবং তারা বড় হয়ে যাবে এ আশংকায় তোমরা অপব্যয় করে এবং তাড়াহুড়ো করে তা ভক্ষণ কর না এবং যে ধনী সে যেন (তা ভোগ করা থেকে) বিরত থাকে, আর যে দরিদ্র সে অবশ্য ন্যায়সঙ্গতভাবে ভোগ করতে পারে। অতঃপর যখন তাদের সম্পদ হস্তান্তর করবে তখন তার সাক্ষী রাখবে; আর হিসাব গ্রহণে আল্লাহই যথেষ্ট।
সূরা নিসা, আয়াত: ৬। 
 
 
৫. শাস্তির ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি
وَلَا تَقْتُلُوا النَّفْسَ الَّتِي حَرَّمَ اللَّهُ إِلَّا بِالْحَقِّ وَمَنْ قُتِلَ مَظْلُومًا فَقَدْ جَعَلْنَا لِوَلِيِّهِ سُلْطَانًا فَلَا يُسْرِفْ فِي الْقَتْلِ إِنَّهُ كَانَ مَنْصُورًا
যাকে হত্যা করা আল্লহ নিষিদ্ধ করেছেন, যথাবিহিত কারণ ব্যতীত তাকে হত্যা কর না। এবং যে অন্যায়ভাবে নিহত হয়, নিশ্চয় আমরা তার উত্তরাধিকারীকে (প্রতিশোধ গ্রহণের) অধিকার দান করেছি; কিন্তু হত্যার ব্যাপারে সে যেন বাড়াবাড়ি না করে, নিশ্চয় তাকে সাহায্য করা হবে।
সূরা বনী ইসরাইল, আয়াত: ৩৩। 
৬. সেবনে বাড়াবাড়ি
كُلُوا وَاشْرَبُوا وَلَا تُسْرِفُوا إِنَّهُ لَا يُحِبُّ الْمُسْرِفِينَ
খাও ও পান কর। (কিন্তু) অপচয় কর না; কেননা, তিনি অপচয়কারীদের ভালবাসেন না।
সূরা আ’রাফ, আয়াত: ৩১। 
 
৭. খরচে বাড়াবাড়ি
وَالَّذِينَ إِذَا أَنْفَقُوا لَمْ يُسْرِفُوا وَلَمْ يَقْتُرُوا وَكَانَ بَيْنَ ذَلِكَ قَوَامًا؛
এবং যারা, যখন ব্যয় করে তখন তারা না অমিত ব্যয় করে, আর না কার্পণ্য করে; বরং এ দুয়ের মধ্যবর্তী পন্থা অবলম্বন করে।
সূরা ফুরকান, আয়াত: ৬৭। 
 
গুনাহের পথে ব্যয় করা, ভণ্ডামি ও অহংকার কর্তৃক ব্যয় করা এবং অতিরিক্ত ব্যয় করাকে ব্যয়ের বাড়াবাড়ি বলা হয়।
 
সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha