IQNA

কুরআন হতে জ্ঞান / ৭

সহনশীলতা এবং ধর্মীয়তার মধ্যে সম্পর্ক

10:34 - December 04, 2022
সংবাদ: 3472934
তেহরান (ইকনা): মানুষের জীবন অপ্রত্যাশিত চ্যালেঞ্জে পূর্ণ। প্রতিটি মানুষ যে কোন পরিস্থিতিতে এবং অবস্থানে অনেক ব্যক্তিগত, পারিবারিক এবং সামাজিক কষ্ট এবং সমস্যার সম্মুখীন হয়, কিন্তু সমস্ত মানুষের সহনশীলতার স্থান একই নয়।
নেতিবাচক আবেগ হল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আবেগগুলির মধ্যে একটি যা আমরা সম্মুখীন হই এবং এ জন্য বিশ্বজুড়ে ব্যক্তি ও পরিবারের উপর বিশাল প্রভাব সৃষ্টি হয়। নেতিবাচক আবেগের মধ্যে দুঃখ, বিষণ্ণতা এবং উদ্বেগ উল্লেখ করা যেতে পারে।
যখন আমরা জানতে চাই যে কোন জিনিশ আমাদের দুঃখিত করেছে, তখন আমরা দেখতে পাই যে নেতিবাচক ঘটনার কারণে আমরা দুঃখিত হয়েছি এবং এর ফলে আমাদের কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, আমরা যখন কিছু হারিয়ে ফেলি তখন আমরা দুঃখ বোধ করি এবং এই দুঃখ এতটাই তীব্র হতে পারে যে এটি আমাদের জীবনকে নিয়ে যায় এবং আমাদের কর্মক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।
কখনও কখনও ভয় আমাদের পরাস্ত করে এবং আমরা আমাদের পছন্দের লক্ষ্যে পৌঁছাতে না পারার বিষয়ে চিন্তা করি। যখন আমাদের অধিকার ক্ষরণ হয়, -তা আমাদের শাসক হোক বা চারপাশের লোকেদের মাধ্যমে হোক – তখন আমরা দুঃখ প্রকাশ করি।
আমরা এমন পরিস্থিতিতে থাকতে পারি না যেখানে আমাদের কোনো সমস্যা নেই এবং কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে না। এমনকি কাছের মানুষও এমন কিছু করতে পারে যা আমরা আশা করি না এবং এটি আমাদের জন্য অপ্রীতিকর।
এটা জীবনের প্রবহমান ঘটনার মতো একটি সত্য ঘটনা যে দুঃখ এবং কষ্ট জীবনের একটি অংশ এবং এই দুনিয়ার জীবনকে দুঃখ থেকে আলাদা করা যায় না। সাধারণত দুঃখ দীর্ঘ হয় এবং আনন্দ ছোট হয় এবং এটাই জীবনের প্রকৃতি।
মনোবিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত গবেষণা অনুসারে, মানসিক স্বাস্থ্য এবং মূল্যবোধের মধ্যে সম্পর্ক একটি সরাসরি সম্পর্ক।মূল্যবোধ আমাদের বলে যে আমরা দুঃখ কতটা সহ্য করতে পারি। অতএব, চাপ এবং কষ্ট সহ্য করা আমাদের মূল্য ব্যবস্থার উপর নির্ভর করে। আর একারণেই মনোবিজ্ঞানীরা বেস ভ্যালু বাড়ানোর চেষ্টা করেন, যাতে এর মাধ্যমে অস্বস্তির বিরুদ্ধে মানুষের সহনশীলতা বৃদ্ধি পাই।
মানসিক স্বাস্থ্য, ধর্ম এবং আল্লাহর সাথে সম্পর্কের সম্পর্কিত এই প্রেক্ষাপট খুবই গুরুত্বপূর্ণ।এই সম্পর্ক যুক্ত থাকলে মানুষের সহনশীলতা ও সমস্যা সমাধান শক্তিশালী হয়। এছাড়াও, আল্লাহর সাথে সম্পর্ক দুঃখ থেকে মুক্তির উপায় এবং আশার পথ প্রদান করে। আরেকটি বিষয় হল ক্ষতি এবং দুঃখের কারণগুলি জানা, যার মধ্যে আমরা "শয়তান" এবং শয়তানের নেতিবাচক চিন্তার কথা উল্লেখ করতে পারি যা আমাদের হৃদয়ে অনুপ্রবেশ করেছে। যখন আমরা দুঃখিত হয় এই জন্য যে, আল্লাহর সাথে আমাদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, এমন পরিস্থিতিতে শয়তানের প্রবেশের পথ খুলে দেওয়া হয় এবং সে তার চিন্তা ও বার্তা দিয়ে আমাদের মানসিকতা পরিবর্তন করে; যেমন পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে:
الشَّیطانُ یعِدُکمُ الفَقرَ وَیأمُرُکم بِالفَحشاءِ  وَاللَّهُ یعِدُکم مَغفِرَةً مِنهُ وَفَضلًا وَاللَّهُ واسِعٌ عَلیمٌ
শয়তান তোমাদের অনটনের ভয় দেখায় এবং অশালীন কর্মের আদেশ দেয় এবং আল্লাহ তোমাদের নিজ ক্ষমা ও অনুগ্রহের প্রতিশ্রুতি দেন এবং তিনি অতিশয় প্রাচুর্যদাতা, প্রজ্ঞাময়।
সূরা বাকারা, আয়াত: ২৬৮।

 

ট্যাগ্সসমূহ: কুরআন হতে জ্ঞান
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha