IQNA

15:45 - June 14, 2017
সংবাদ: 2603258
শবে কদর অতি মহিমান্বিত একটি রাত এই রাতকে মহান আল্লাহ এক হাজার মাসের থেকেও বেশী মর্যাদা দান করেছেন। এই রাতে মানুষের ভাগ্য নির্ধারিত হয় তবে মানুষ ভাল আমলের মাধ্যমে সব কিছুকেই নিজের অনুকূলে আনতে পারে।

বার্তা সংস্থা ইকনা: ১৯শে রমজানে আমিরুল মু’মিনিন হযরত আলী(আ.) আঘাত প্রাপ্ত হন এবং ২১ রমজান শাহাদাত বরণ করেন। আরা ১৯, ২১ এবং ২৩শে রমজানকে শবে কদর হিসাবে পালন করে থাকি।

পবিত্র কুরআনে একমাত্র রমজান মাসের নাম বর্ণিত হয়েছে এবং তার গুরুত্ব ও মর্যাদা সম্পর্কে কথা বলা হয়েছে। «إِنَّ عِدَّةَ الشُّهُورِعِندَ اللَّهِ اثْنَا عَشَرَ شَهْرًا فِي كِتَابِ اللَّهِ يَوْمَ خَلَقَ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ»

পবিত্র কুরআনে বার মাসের কথা উল্লেখ আছে কিন্তু বার মাসের মধ্যে শুধু রমজান মাসের নাম কুরআনে বর্ণিত হয়েছে। এটা থেকে বোঝা যায় যে রমজান এবং শবে কদরের গুরুত্ব কত বেশী।

রমজান মাস আল্লাহর নিট গুরুত্বপূর্ণ হওয়ার আরেকটি কারণ হচ্ছে এই মাসে কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে। «شَهْرُ رَمَضانَ الَّذي أُنْزِلَ فيهِ الْقُرْآنُ هُديً لِلنَّاسِ وَ بَيِّناتٍ مِنَ الْهُدي وَ الْفُرْقانِ»

যে মাস কুরআনকে ধারণ করার ক্ষমতা রাখে নিঃসন্দেহে সেই মাসের গুরুত্ব অত্যধিক।

পবিত্র কুরআনে বর্ণিত হয়েছে: «إِنَّا أَنزَلْنَاهُ فِی لَیْلَةِ الْقَدْرِ* وَمَا أَدْرَاكَ مَا لَیْلَةُ الْقَدْرِ* لَیْلَةُ الْقَدْرِ خَیْرٌ مِّنْ أَلْفِ شَهْرٍ» ی কোরআনকে শবে কদরে নাজিল করা হয়েছে। যার মর্যাদা এক হাজার মাস থেকেও অধিক। এবং এই রাতের মর্যাদাকে উপলব্ধি করা সবার পক্ষে সম্ভব নয়।  

শবে কদরের আমলের মধ্যে একটি আমল হচ্ছে কুরআন মাথায় নিয়ে আল্লাহর কাছে শপথ করা। আমরা আল্লাহর সাথে শপথ করি হে আল্লাহ! আমাদেরকে আপনি কুরআনে ওসিলায় মাফ করে দিন এবং কুরআনের শাফায়ত দান করুন। সূত্র: শাবিস্তান
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: