IQNA

18:49 - June 19, 2021
সংবাদ: 2612986
তেহরান (ইকনা): সরকার-বিরোধী শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ সমাবেশে অংশ নেয়ার অভিযোগে সৌদি সরকার দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় কাতিফ এলাকায় ৪০ জনের বেশি শিয়া কিশোরের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার পরিকল্পনা করছে। বিষয়টি নিয়ে এরইমধ্যে মানবাধিকার কর্মীরা সৌদি সরকারকে সতর্ক করেছে।

সৌদি সরকার যদিও গত বছর দাবি করেছিল যে, ছোটখাটো অপরাধের জন্য লোকজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার রীতি বন্ধ করবে, তারপরও মানবাধিকার কর্মীরা জানাচ্ছেন যে, রিয়াদ ৪০ জনের বেশি কিশোরকে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার জন্য তৎপর হয়ে উঠেছে। এসব কিশোর গণতন্ত্রপন্থী মিছিল-সমাবেশে অংশ নিয়েছে বলে রিয়াদ সরকারের অভিযোগ।

গত ১৫ জুন সৌদি সরকার ২৪ বছর বয়সী শিয়া মুসলিম তরুণ মুস্তাফা বিন হাশিম বিন ঈসা আলে দারভিশকে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে। কাতিফ এলাকায় সরকার-বিরোধী বিক্ষোভে অংশ নেয়া ও উসকানি সৃষ্টির অভিযোগ আনা হয়েছিল তার বিরুদ্ধে। ২০১৫ সালে তাকে যখন আটক করা হয় তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১৭ বছর।

কারাগারে আটকে রেখে নির্যাতনের মাধ্যমে মুস্তাফা বিন হাশিম বিন ঈসা আল-দারভিশের কাছ থেকে স্বীকারোক্তি আদায় করা হয়েছিল বলে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে।

মানামা পোস্টের এক বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে, সৌদি আরবের এসকল তরুণদের তরোয়ালের আঘাতে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা এবং তার দেহ পরিবারের নিকট হস্তান্তর না করার বিষয়টি সুস্পষ্ট মানবাধিকারের লঙ্ঘন। শত বিরোধিতা থাকা সত্ত্বেও সৌদি সরকার দমন ও হত্যার নীতি অব্যাহত রেখেছে।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি যুব জোট যোগ করেছে: "সৌদি সরকার সন্ত্রাসী এবং অপরাধী। এই সরকার ধর্ম এবং মানবাধিকারকে সম্মান করে না। বাইডেন ও তার সরকারও তাদের মিত্রদের অপরাধ ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।

সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক মঙ্গলবার সেদেশের এক যুবকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার ঘোষণা দিয়েছে। ২০১১ সালে এক শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ চলাকালীন সময় তরুণ মুস্তাফা আলে দারইউশ সাথে আরও ১২ জনকে গ্রেফতার করেছিল দেশটির পুলিশ।

কিছু আইনি সূত্রে বলা হয়েছে যে, মুস্তাফা আলে দারইউশের বেকসুর খালাসের জন্য যথেষ্ট প্রমাণ ছিল। তবে রায়টি সম্পূর্ণ রাজনৈতিক ছিল। সৌদি বিচার বিভাগ এই রায় পরিবর্তন করতে অস্বীকার করেছে। iqna

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: