IQNA

'নাফসে লাওয়ামা' "; মানুষের অভ্যন্তরীণ দোষারোপকারী

19:55 - August 19, 2022
সংবাদ: 3472317
তেহরান (ইকনা): মানুষ তার জীবনে অনেক ভালো-মন্দ কাজ করে। সাধারণত, ভাল কাজের প্রতি মানুষের প্রতিক্রিয়া হল অভ্যন্তরীণ আনন্দদায়ক অনুভূতি সৃষ্টি হয় এবং খারাপ কাজের জন্য এটি  অভ্যন্তরীণ নিন্দা এবং হীনবোধ সৃষ্টি হয়। অবশ্যই, খারাপ কাজের পুনরাবৃত্তির সাথে সাথে মানুষের অনুশোচনাবোধ আর কাজ করে না। 
মানুষের ভিতরে এমন একটা শক্তি আছে যা তাকে খারাপ কাজ করতে বাধা দেয় বা সে খারাপ কাজ করলে তাকে দোষারোপ করে বা তার বিচার করে। ইসলামী বই ও গ্রন্থে এই ইন্দ্রিয় ও অভ্যন্তরীণ শক্তিকে নফসে লাওয়ামা'  বলা হয়।
নফসে লাওয়ামা'  অর্থ নাফসে তিরস্কার করা। এ প্রসঙ্গে মোহাম্মদ তাকি মিসবাহ ইয়াজদি বলেন, এটা আত্মার এমন একটি অবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তি তার ভুলের জন্য অনুশোচনা করে এবং নিজেকে দোষারোপ করে।  কেউ কেউ আরও বলেন যে নফসে লাওয়ামা'  সেই একই বিবেক যা একজন ব্যক্তিকে পাপ করার পর দোষারোপ করে এবং তাকে বিবেকের যন্ত্রণা ভোগ করায়।  এই পরিভাষাটি সূরা কিয়ামতের ২ নম্বর আয়াতে ব্যবহৃত হয়েছে:
وَلَا أُقْسِمُ بِالنَّفْسِ اللَّوَّامَةِ
আরও শপথ করছি (মন্দকর্মে) ভর্ৎসনাকারী আত্মার।
নফসে লাওয়ামা'র বিপরীতে অবস্থান করছে নাফসে আম্মারা। নাফসে আম্মারা হল নাফসের একটি অবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তি তার বিবেকের আদেশ শোনে না এবং পাপের দিকে ফিরে যায়। এছাড়াও আরকটি নাফস রয়েছে। আর সেটি হচ্ছে নাফসে মুতমায়িন্না। নাফসে মুতমায়িন্না এমন একটি অবস্থা যা পুনরাবৃত্তি, আকলের প্রতি মনোযোগ দেওয়া এবং আকল অনুসরণ করার ফলে একটি অভ্যাসে পরিণত হয় এবং একজন ব্যক্তি এটি করে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে এবং শান্তি পায়।
মুসলিম পণ্ডিত ও মুফাসসিরদের মতে, একজন মানুষের বিভিন্ন নাফস রয়েছে যেমন নাফসে আম্মারা, নাফসে লাওয়ামা এবং নাফসে মুতমায়িন্না। এই নাফসসমূহ আত্মার একত্ব বা মানুষের পরিচয়ের সাথে সাংঘর্ষিক নয়।
তাফসির গ্রন্থসমূহে, নফস লাওয়ামা-এর বিভিন্ন ব্যাখ্যা প্রস্তাব করা হয়েছে, যেমন নফস লাওয়ামা-এর অর্থ হল একজন মুমিনের নাফস যে নিজেকে পাপ বা সৎকাজে শিথিলতার জন্য দায়ী করে। আল্লামা তাবাতাবায়ী দৃষ্টিভঙ্গিও একই।
 
* মোর্তেজা মোতাহারী (1919-1979) ইসলামিক বিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে একজন বিশিষ্ট লেখক ছিলেন। ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে ইতিহাস, আইনশাস্ত্র, দর্শন এবং সামাজিক ক্ষেত্রের বিস্তৃত বিষয়গুলিকে তার বুদ্ধিবৃত্তিক কার্যকলাপের অংশ হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যার ফলাফল তার রচনা সংগ্রহের শিরোনামে ২৮টি খণ্ডে প্রকাশিত হয়েছে।
 
* মোহাম্মদ তাকি মিসবাহ ইয়াজদি (1935-2021), তাফসিরে মৌজুয়ী লিখেছেন। তিনি ইসলামী দর্শন ও নীতিশাস্ত্রের একজন গবেষক এবং অধ্যাপক ছিলেন এবং এই দুটি ক্ষেত্রে বিভিন্ন গ্রন্থ রচনা করেছেন।
 
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha