IQNA

21:55 - January 28, 2019
সংবাদ: 2607808
ইমাম কাজিম(আ.) বলেছেন, আমাদের অনুসারীদের মধ্যে যারাই ইমাম মাহদীর সাহায্য করার জন্য একটি বাহন প্রস্তুত রাখবে এবং এর মাধ্যমে আমাদের শত্রুদেরকে নিরাশ করবে মহান আল্লাহ তাদেরকে চারটি বৈশিষ্ট্য দান করবেন, ১- তার রিজিক বৃদ্ধি করবেন,২- তার আত্মাকে অনেক বড় করবেন, ৩- তার আরজু বা আশা পূর্ণ করবেন এবং ৪- তার সকল কাজে তাকে সাহায্য করবেন।

বার্তা সংস্থা ইকনা'র রিপোর্ট: আমরা যদি প্রকৃত অর্থে ইমাম মাহদীর জন্য প্রস্তুত থাকি তাহলে সর্বদা সজাগ থাকব এবং ইমাম মাহদীর উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের চেষ্টা করব। কেননা নবী ও ইমামগনের উদ্দেশ্য হচ্ছে সবাইকে খোদামুখী করে গড়ে তোলা এবং সমাজ থেকে সকল প্রকার অন্যায় ও অত্যাচার বিতাড়িত করা।

সূরা বাকারার ১৫৫ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে- وَلَنَبْلُوَنَّكُمْ بِشَيْءٍ مِنَ الْخَوْفِ وَالْجُوعِ وَنَقْصٍ مِنَ الْأَمْوَالِ وَالْأَنْفُسِ وَالثَّمَرَاتِ وَبَشِّرِ الصَّابِرِينَ

নিশ্চয়ই আমি তোমাদেরকে কিছু ভয় ও ক্ষুধা, জান ও মাল এবং ফসলের ক্ষতির মাধ্যমে পরীক্ষা করব। (হে পয়গম্বর!) আপনি ধৈর্যশীলদের সুসংবাদ দিন।

এই পার্থিব জগত হলো একটি পরীক্ষার জায়গা। আল্লাহ তা'লা প্রত্যেক মানুষকেই পরীক্ষা করেন। তবে সবার পরীক্ষা একই স্তরের নয়। আল্লাহ যাকে যেমন জ্ঞান, মেধা এবং জীবনোপকরণ দিয়েছেন তাকে ঠিক তার অনুপাতেই পরীক্ষা করা হবে।

সত্য প্রতিষ্ঠার জন্য কিংবা জালেমের হাত থেকে মজলুমকে উদ্ধার করার জন্য যুদ্ধে যাওয়ার বিষয়টিও একটি পরীক্ষা। আল্লাহ পাক দেখতে চান মানুষ তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করছে কি না।

এছাড়া আর্থিক অনটন, দারিদ্র, জান-মালের ক্ষয়-ক্ষতি এসবই পরীক্ষা হিসেবে মানুষের জীবনে আসে। মানুষ এসব বালা-মুসিবতের সময় কি ধরনের আচরণ করে তাই পরীক্ষা করা হয়ে থাকে।

তবে আল্লাহ তায়ালা মানুষকে পরীক্ষা করার অর্থ এই নয় যে, তিনি মানুষকে চেনেন না, মানুষের প্রকৃতি তাঁর জানা নেই। এর অর্থ হচ্ছে- আল্লাহ পাক মানুষকে পরীক্ষার মাধ্যমে তার ভেতরে সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে চান এবং মানুষকে পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে পুরস্কার লাভের উপযোগী করতে চান।

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: