IQNA

19:00 - July 29, 2020
সংবাদ: 2611227
তেহরান (ইকনা): ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি বলেছেন, আমেরিকার আকাশ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থা বা আইসিএও এবং আঞ্চলিক দেশগুলোর নীরবতা ভাঙতে হবে।

গত বৃহস্পতিবার সিরিয়ার আকাশসীমায় লেবাননগামী একটি ইরানি যাত্রীবাহী বিমানকে মার্কিন যুদ্ধবিমান হয়রানি করার পর প্রেসিডেন্ট রুহানি একথা বললেন। তিনি মার্কিন সরকারের এ ধরনের বিপজ্জনক আচরণের কঠোর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। পার্সটুডে

আজ (বুধবার) ইরানের মন্ত্রিসভার বৈঠকে দেয়া বক্তৃতায় প্রেসিডেন্ট রুহানি আরো বলেন, ইরানি জাতির ওপর চাপ সৃষ্টির নীতি থেকে কাঙ্ক্ষিত ফল না পেয়ে শত্রু দেশগুলো দিন দিন হতাশ হয়ে পড়ছে। এজন্য শত্রুরা নতুন দৃশ্যপটের অবতারণা করেছে এবং বিমানের আন্তর্জাতিক রুটে বিপজ্জনক ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করছে।

আমেরিকার এ ধরনের কর্মকাণ্ডে প্রেসিডেন্ট রুহানি প্রশ্ন তুলে বলেন, “কোথায় জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, কোথায় আইসিএও এবং আঞ্চলিক দেশগুলো? যে দেশের আকাশসীমা লঙ্ঘন করা হয়েছে এবং যে দেশ ইরানি বিমানের গন্তব্য ছিল তাদের সবাইকে নীরবতা ভেঙে কথা বলতে হবে।”

ড. হাসান রুহানি বলেন, “কীভাবে একটি মুক্ত আন্তর্জাতিক বিমান রুটে যাত্রীবাহী বিমানের কাছে যুদ্ধবিমান মহড়া দেয়? কীভাবে সম্ভব যে, তারা বেসামরিক যাত্রীদেরকে ভীত-সন্ত্রস্ত করে? এগুলো নিঃসন্দেহে আাকশ সন্ত্রাসবাদ।”

যারা যাত্রীবাহী বিমানের কাছে যুদ্ধবিমান পাঠিয়েছে তারা সন্ত্রাসবাদী কার্যক্রম পরিচালনা করেছে এবং তাদেরকে সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল সংস্থা বা আইসিএও এবং আঞ্চলিক দেশগুলোকে এর বিরুদ্ধ লড়তে হবে।” iqna

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: