IQNA

4:38 - May 27, 2022
সংবাদ: 3471906
তেহরান (ইকনা): মহানবীর ( সা: )পবিত্র আহলুল বাইরের ( আ: ) ৬ষ্ঠ মাসূম ইমাম জাফার ইবনে মুহাম্মাদ আস সাদিকের ( আ : ) শাহাদাত দিবস । তিনি শাইখুল আয়িম্মাহ ( ( আহলুল বাইতের ( আ :) ইমামদের ( আ : ) শাইখ ) ) এবং রাঈসুল মাযহাব (( আহলুল বাইতের ( আ: ) মাযহাবের প্রধান )) নামে খ্যাতি লাভ করেছেন ।

 তিনি পবিত্র কুরআনের তাফসীর , হাদীস , সীরাত , শরিয়তের বিধি বিধান ( ফিকহ শাস্ত্র ) , নীতি শাস্ত্র ও চরিত্র বিজ্ঞান ( ইলমুল আখলাক ) , সঠিক ধর্মীয় আকিদা বিশ্বাস সহ  যাবতীয় খাঁটি ধর্মীয় জ্ঞান বিজ্ঞানের ( দ্বীনী উলূম ও মাআরিফ )  প্রসার  ঘটিয়েছিলেন সমগ্র মুসলিম বিশ্বে ।
 
তিনি ৪০০০ শিষ্যকে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দিয়ে গোড়ে তুলেছিলেন । তাঁর থেকে ৪০০০০ হাদীস আমাদের কাছে পৌঁছেছে । ইমাম আমীরুল মুমিনীন আলী ( আ:) ব্যতীত এত অধিক সংখ্যক হাদীস আহলুল বাইতের ( আ:) আর কোনো মাসূম ইমাম ( আ : ) থেকে বর্ণিত হয় নি । কারণ তাঁর ইমামত কালে বনী উমাইয়ার খিলাফতের পতন  ঘটিয়ে বনী আব্বাস আব্বাসীয় খিলাফত প্রতিষ্ঠা করে । আর এই রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের সময় কাল ছিল এমন এক মহা সুযোগ বা মাহেন্দ্র ক্ষণ যার তিনি ( আ: ) পূর্ণ সদ্ব্যবহার করেছিলেন খাঁটি ইসলামী জ্ঞান বিজ্ঞানের প্রসার ও প্রচারের জন্য ।
 
তাঁর ইমামত কাল ৩৪ বছর দীর্ঘ হওয়ায় তিনি এই ৩৪ বছর আহলুল বাইতের ( আ: ) অনুসারীদেরকে হিদায়ত করেছেন । আর এ সময় তাঁর খ্যাতি ও জ্ঞান গত ব্যক্তিত্ব সমগ্র মুসলিম বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে যা তদানীন্তন আব্বাসীয়  খলীফা মনসূর দাওয়ানীকীকে খুবই ভীত করে ফেলে ।
 
অবশেষে দ্বিতীয় আব্বাসীয় খলীফা মনসূর দাওয়ানীকীর নি্র্দেশে  ইমাম সাদিককে ( আ: ) আঙ্গুরের সাথে বিষ খাইয়ে ২৫ শাওয়াল ১৪৮ হিজরীতে  শহীদ করা হয় । শহীদ ইমাম জাফার আস সাদিক ( আ:)কে পবিত্র মদীনা নগরীর জান্নাতুল বাকী গোরস্তানে প্রপিতামহী ফাতিমা বিনতে আসাদ ( হযরত আলী আ: -এর জননী ) , চাচা ইমাম হাসান ( আ: ) , দাদা ইমাম আলী ইবনুল হুসাইন যাইনুল আবেদীন ( আ:) , পিতা ইমাম বাকিরের ( আ:) কবরের পাশে সমাহিত ( দাফন ) করা হয় ।
 
ইমাম জাফার আস সাদিকের ( আ: ) কবর যিয়ারতের ফযীলত :
ইমাম সাদিক ( আ:) বলেছেন : 
যে ব্যক্তি আমাকে যিয়ারত করবে তার পাপ সমূহ ক্ষমা করা হবে এবং সে দারিদ্র ও অভাবে মৃত্যু বরণ করবে না । ( (শেখ মুফীদ প্রণীত আল - মুকনিয়াহ , ইমাম সাজ্জাদ ( আ: )  এবং ইমাম বাকির  ( আ:) -এর কবর যিয়ারতের সওয়াব ও পূণ্য সংক্রান্ত অধ্যায় দ্র: ))
من زارني غُفِرَتْ لَهُ ذُنُوْبُهُ وَ لَمْ يَمُتْ فَقِيْرَاً .
আমরা এই মহান ইমামের শাহাদাত দিবসে তাঁকে স্মরণ করব , তাঁর জন্য শোক প্রকাশ করব এবং তাঁর সুমহান শিক্ষা ও আদর্শ আমাদের জীবনে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করলেই আমরা তাঁর ও আহলুল বাইতের (আ:) প্রকৃত অনুসারীদের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার সৌভাগ্য লাভ করব । মহান আল্লাহ পাক তাঁর ও মহান আহলুল বাইতের ( আ:) উসিলায় আমাদেরকে সেই তৌফিক দান করুন । আমীন ।
ইসলামী চিন্তাবিদ এবং গবেষক হুজ্জাতুল ইসলাম ওলায় মুসলিমিন মুহাম্মদ মুনীর হুসাইন খান

 

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: