IQNA

সাইয়্যেদ হাসান নাসরাল্লাহ: তাবয়ীন জিহাদের দিকে মনোযোগী হতে হবে

16:27 - August 07, 2022
সংবাদ: 3472255
তেহরান (ইকনা): হিজবুল্লাহর মহাসচিব “ইয়া মাহদী” শ্লোগান সমগ্র মানবতার মুক্তি ও পরিত্রাণের উপায় উল্লেখ করে বলেন: : আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস এবং হযরত মাহদী (আ.) ও হযরত ঈসা (আ.)-এর আবির্ভাবের মাধ্যমে মানবতার নিশ্চিত পরিত্রাণ তাবয়ীন (ব্যাখ্যার মাধ্যমে পরিষ্কার করে দেওয়া) জিহাদের অংশ, যা মানুষের জন্য হুজ্জাতকে তামাম করে এবং শত্রুকে বিরক্ত করে। 
লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ ১৪৪৪ হিজরির মহররমের ৯ম রাতে গুরুত্বারোপ করে বলেন: কিছু শাসক আমাদের বোঝাতে চায় যে ইসরাইল শান্তির ঘুঘু; কিন্তু এই শাসনব্যবস্থা হত্যা ও অপরাধের ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে।
 
ইসরাইল অপরাধ করার উপর নির্ভর করলে কেউ কেউ সত্যকে উল্টে দিতে চায় উল্লেখ করে তিনি বলেন: লেবানন ও ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ প্রমাণ করেছে যে ইহুদিবাদী সেনাবাহিনী পরাজিত ও অপমানিত।
 
কেউ কেউ ইসরাইলের অপরাধ করার উপর নির্ভর করে সত্যকে বিকৃত করার চেষ্টা করে। এ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন: লেবানন ও ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ প্রমাণ করেছে যে, ইহুদিবাদী শাসকের সেনাবাহিনী পরাজিত ও অপমানিত।
হাসান নাসরাল্লাহ বলেছেন: শত্রুরা প্রতিরোধকারী দেশগুলোর দুর্বল দিকগুলো তুলে ধরার এবং বড় করার চেষ্টা করে, যা হতাশার দিকে নিয়ে যায়।
 
তিনি আরো বলেন: কিছু সামরিক যুদ্ধ চালিয়ে শত্রুরা মনস্তাত্ত্বিক’কে ধ্বংস করতে চায়।
 
নাসরাল্লাহ বলেছেন: অভিজ্ঞতা প্রমাণ করেছে যে আমেরিকা যেসকল দেশসমূহে ব্যর্থ হয়েছে বিশেষ করে ইরাক, আফগানিস্তান, ইরান, ইয়েমেন, সোমালিয়া, ভেনিজুয়েলা এবং কিউবায় ব্যর্থ হয়েছে। এসকল দেশে আমেরিকা রাজনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়ে এবং তারা ময়দানেও ব্যর্থ হয়েছে।
 
লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর মহাসচিব আরও বলেছেন, গাজা উপত্যকার ওপর ইসরাইলের সাম্প্রতিক বর্বরোচিত হামলা প্রকাশ্য আগ্রাসন ও অপরাধযজ্ঞ ছাড়া আর কিছু নয়।তিনি শনিবার রাতে শোকাবহ মহররম উপলক্ষে এক টেলিভিশন ভাষণে এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, এবারের আগ্রাসনের কোনো ব্যাখ্যা তেল আবিবের কাছে নেই কারণ এবং গাজা উপত্যকা থেকে আগে হামলা চালানো হয়নি।
 
সাইয়্যেদ নাসরুল্লাহ বলেন, “যেকোনো মুক্তমনা ব্যক্তি ইসরাইলের এই আগ্রাসনের নিন্দা জানাবে; কিন্তু বহু আরব দেশ আজ নীরব।যেকোনো সময়, যেকোনো স্থানে ও যেকোনো পদ্ধতিতে ইসরাইলি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার অধিকার ফিলিস্তিনি জনগণ ও প্রতিরোধ আন্দোলনগুলোর রয়েছে। কিন্তু ইহুদিবাদীদের সন্ত্রাসী আচরণের সামনে নীরবতা পালন করলে তাদের সন্ত্রাসবাদ আরো বেড়ে যাবে।”
 
নাসরুল্লাহ বলেন, লেবানন ও ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ আন্দোলনগুলো প্রমাণ করেছে, ইসরাইলি বাহিনীকে পরাজিত ও অপমানিত করা সম্ভব। হিজবুল্লাহর মহাসচিব আরো বলেন, “ইহুদিবাদী শত্রুদের হিসাব-নিকাশ সব সময় ভুল প্রমাণিত হয়েছে। তারা ফিলিস্তিনকে হুমকি দেয় অথচ তাদের মূল টার্গেট লেবানন। আমরা গাজা পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। তারা যদি ভেবে থাকে আমরা তাদের ভয়ে ভীত তাহলে তারা ভুল করবে।”
 
হিজবুল্লাহর মহাসচিব বলেন, “প্রতিরোধ আন্দোলনগুলো অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন বেশি শক্তিশালী। ইসলামি জিহাদ যে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে তাতে প্রমাণিত হয়েছে, ইসরাইলি আগ্রাসন আর কখনও মুখ বুজে সহ্য করবে না নির্যাতিত ফিলিস্তিনি জনগণ।” 4076496
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha