IQNA

আরবাইনের পদযাত্রার সমস্যাগুলো অতিরঞ্জিত না করে পর্যবেক্ষণ ও সমাধান করতে হবে

18:52 - September 17, 2022
সংবাদ: 3472475
তেহরান (ইকনা): তেহরানে অনুষ্ঠিত জুমার নামাজের দ্বিতীয় খুতবায় হুজ্জাতুল  ইসলাম আবু তোরাবি ফার্দ আরবাইনের পদযাত্রার বিষয় উল্লেখ করে করে বলেছেন: "এই মহান পদযাত্রার দুর্বলদিকগুলো অতিরঞ্জিত করে ফুটিয়ে তোলা ঠিক নয়। সে সমস্যাগুলি রয়েছে সেগুলো নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা এবং অর্জিত অভিজ্ঞতা এবং যত্নশীল পরিকল্পনা ব্যবহার করে, প্রদত্ত এই গৌরবময় এবং মহান ধর্মীয়, রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক আচার অনুষ্ঠান আরও ভাল ভাবে উদযাপন করতে হবে।
আরবাইন মিছিলের সমস্যাগুলো অতিরঞ্জিত না করে পর্যবেক্ষণ ও সমাধান করতে হবে১৬ই সেপ্টেম্বর তেহরানে অনুষ্ঠিত এই সপ্তাহের জুমার নামাজের প্রথম খুতবায়, তিনি মুসল্লিদেরকে ঐশী তাকওয়া গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন: প্রকৃত তাকওয়া আশুরার আন্দোলনের মধ্যে নিহিত রয়েছে এবং মানবিক শ্রেষ্ঠত্বের বিদ্যালয়ে যোগদান করার মাধ্যমে অর্জন করা সম্ভব।
তিনি আরো বলেন: ইমাম হুসাইন (আ.) বলেছেন, যে শাসক জুলুম করে তাকে মহাপাপী বলে গণ্য করা হয় এবং ইসলামী সমাজের উচিত তার বিরুদ্ধে হৃদয় ও জিহ্বা দিয়ে একটি বড় আন্দোলন গড়ে তোলা এবং যদি কোন মুসলিম ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে হৃদয় ও জিহ্বা দিয়ে প্রতিবাদ না করে এবং না দাঁড়ায়, সে যুলুম ও এই পাপে শরীক হয়েছে। এছাড়াও যদি সে তার আনুগত্যের শপথ করে এবং তাকে সমর্থন করে, তাহলে সে মহাপাপ করেছে।
তেহরানের অস্থায়ী খতিব গুরুত্বারোপ করে বলেন: ইমাম হুসাইন (আ.) কখনই নোংরামি ও নিষ্ঠুরতার প্রকাশের প্রতি আনুগত্যের অঙ্গীকার করতে রাজি হননি এবং তার আশেপাশের কাউকে তার প্রতি আনুগত্যের অঙ্গীকার করার অনুমতি দেননি। তিনি ছিলেন আলো ও বিশুদ্ধতার প্রতিমূর্তি এবং যারা সত্যের সারিতে আছে তারা কখনোই কোনো অত্যাচারী শাসকের আনুগত্য করবে না।
আবু তোরাবি ফর্দ বলেন: ইসলামী সমাজ নবী (সা.) এর সাহাবীদের উপস্থিতি এবং আহলে বাইতের ন্যায়পরায়ণতায় বিশ্বাসী হওয়া সত্ত্বেও ইয়াজিদ সরকারের সন্ত্রাস ও লোভের মুখে নীরব ছিল এবং এদের মধ্যে অনেকেই কারবালায় ইমাম হুসাইন (আ.)-এর বিপক্ষে ছিল। ইবনে আব্বাসকে একটি চিঠি লিখে ইয়াজিদ বলেছিল: আপনি পরিবারের বড় এবং হুসাইন বিন আলী (আ.)-কে আমার সরকারের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো থেকে বিরত রাখুন এবং ইবনে আব্বাসও সেদিকেই চেষ্টা করছেন। সেদিন যারা ইয়াজিদের শাসনের বিরোধিতা শুরু করেছিল তারা ভাল করেছিল।
ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রভাবশালী আলেম হুজ্জাতুল ইসলাম মোহাম্মাদ হাসান আবু তোরাবি ফার্দ বলেছেন, ফিলিস্তিন ও ইয়েমেনে যে প্রতিরোধ সংগ্রাম চলছে তা ইমাম হোসাইন (আ.)'র আশুরা বিপ্লবেরই ধারাবাহিকতা। 
মহানবী (সা.)'র প্রাণপ্রিয় নাতি ইমাম হোসাইন (আ.)'র শাহাদাতের চেহলাম বার্ষিকীকে সামনে রেখে বর্তমানে ইরাকের কারবালায় কোটি কোটি মানুষ উপস্থিত হয়েছেন।
এই মহান বার্ষিকীকে সামনে রেখে তিনি ইমাম হোসাইন (আ.)'র লক্ষ্য-উদ্দেশ্য বর্ণনা করে বলেন, আজ ইয়েমেন ও ফিলিস্তিনসহ বিভিন্ন দেশে যে জিহাদি আন্দোলন চলছে তা ইমাম হোসাইন (আ.)'র আন্দোলনেরই ধারাবাহিকতা এবং এই মহান ইমাম সবার সামনে জালিম ও স্বৈরাচারী শাসকদের বিরুদ্ধে আন্দোলন ও সংগ্রামের শিক্ষা রেখে গেছেন।
তেহরানের জুমার নামাজের খতিব এ সময় ইরাকের কারাবালাকে ঘিরে কোটি কোটি মানুষের উপস্থিতির প্রশংসা করেন এবং জিয়ারতকারীদের আপ্যায়নে ইরাকিদের প্রশংসনীয় ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।
তিনি বলেন, ইমাম হোসাইন (আ.)'র শাহাদাতের চেহলাম বার্ষিকী এখন গোটা বিশ্বের মুসলমানদের আধ্যাত্মিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক ঐক্যের প্রদর্শনীতে পরিণত হয়েছে।
বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, এ বছর বিশ্বের ৮০টিরও বেশি দেশ থেকে ইমাম হোসাইন (আ.)'র মাজার জিয়ারতে গেছেন। 4085936
 
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha