IQNA

কুরআনে বিভিন্ন ব্যক্তিদের চরিত্র – ৭

বালয়াম বাউরা; প্রতারক বিজ্ঞ ব্যক্তি

2:28 - September 18, 2022
সংবাদ: 3472486
তেহরান (ইকনা): জ্ঞানী ব্যক্তিগণ বিশ্ব এবং ঘটনার কারণ সম্পর্কে চিন্তা করেন, তারা পরিপূর্ণতা এবং আধ্যাত্মিকতার পথে হাঁটতে পারেন। কিন্তু এই বৈশিষ্ট্য তাদের দায়িত্বকে আরও বৃদ্ধি করে। তবে অহংকার ও বিদ্রোহের সম্ভাবনার কারণে এটি তাদের বিচ্যুত হতে পারে। বালয়াম বাউরা কুরআনে প্রবর্তিত এই চরিত্রগুলির একটি উদাহরণ।

"বালয়াম বাউরা" ছিল বনী ইসরাইলের একজন জ্ঞানী ব্যক্তি এবং হযরত মূসা (আঃ)-এর জীবদ্দশায় শামের (বর্তমান সিরিয়া) একটি গ্রামে বসবাস করত। বালাম ভবিষ্যতবাণী কর এবং ভবিষ্যৎ ঘটনা সম্পর্কে অবহিত করতো। তিনি ইব্রাহিম (আ.) কর্তৃক আনিত ধর্মের অনুসারী ছিলেন এবং লোকেরা তাদের সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করতে এবং তাদের সম্পত্তি এবং জীবনের আশীর্বাদের জন্য দোয়া চাইতে তার কাছে আসতো।

বালয়াম প্রথম দিকে মু’মিনদের অন্তর্ভুক্ত ছিল এবং ঐশ্বরিক জ্ঞান সম্পর্কে অবগত ছিল, এমনকি হযরত মূসা (আ.) তাকে একজন শক্তিশালী ধর্মীয় ধর্মপ্রচারক হিসাবে ব্যবহার করতেন। তাঁর অবস্থান এবং রহস্যময় ব্যক্তিত্ব এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যেখানে তাঁর প্রার্থনা অবিলম্বে পূর্ণ হয়েছিল।

এমন চরিত্র অবশ্য হঠাৎ বদলে গেল। ফেরাউনের প্রতি তার আকাঙ্ক্ষা এবং তার প্রতিশ্রুতির কারণে, সে সঠিক পথ থেকে বিচ্যুত হয়েছিল এবং তার সমস্ত আধ্যাত্মিক ও ঐশ্বরিক কর্তৃত্ব হারিয়েছিল। এই পরিবর্তনের মাধ্যমে তিনি কেবল নিজেকে সঠিক পথ থেকে দূরে সরিয়ে রাখেননি, বরং হযরত মূসা (আ.)-এর চরম বিরোধীদের একজন হয়ে ওঠে। বালয়ামের বিচ্যুতির অন্যান্য কারণও রয়েছে, যেমন ইসরাইলীদের অভিশাপ দেওয়ার চেষ্টা, নারীদের মাধ্যমে তাদের দুর্নীতি ও ধর্মত্যাগের দিকে নিয়ে যাওয়া, জাগতিকতা এবং মূসা (আ.)-এর প্রতি তার ঈর্ষা।

পবিত্র কুরআনে বালামের কাহিনী নাম ছাড়াই উল্লেখ করা হয়েছে। এই গল্পে, একজন ব্যক্তির পরিচয় করা হয়েছে যিনি ঐশ্বরিক আয়াত এবং জ্ঞানের সাথে একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে পৌঁছেছে। কিন্তু জাগতিকতা এবং নফসের অনুসরণ তাকে পথভ্রষ্ট করেছিল। এ ব্যাপারে পবিত্র কুরআনে উল্লেখ করা হয়েছে:

 

وَاتْلُ عَلَيْهِمْ نَبَأَ الَّذِي آتَيْنَاهُ آيَاتِنَا فَانْسَلَخَ مِنْهَا فَأَتْبَعَهُ الشَّيْطَانُ فَكَانَ مِنَ الْغَاوِينَ وَلَوْ شِئْنَا لَرَفَعْنَاهُ بِهَا وَلَكِنَّهُ أَخْلَدَ إِلَى الْأَرْضِ وَاتَّبَعَ هَوَاهُ فَمَثَلُهُ كَمَثَلِ الْكَلْبِ إِنْ تَحْمِلْ عَلَيْهِ يَلْهَثْ أَوْ تَتْرُكْهُ يَلْهَثْ ذَلِكَ مَثَلُ الْقَوْمِ الَّذِينَ كَذَّبُوا بِآيَاتِنَا فَاقْصُصِ الْقَصَصَ لَعَلَّهُمْ يَتَفَكَّرُونَ

(হে রাসূল!) তুমি তাদের সেই লোকের বৃত্তান্ত পাঠ করে শোনাও যাকে আমরা আমাদের নিদর্শনসমূহ প্রদান করেছিলাম, অতঃপর সে তা থেকে সম্পূর্ণরূপে পৃথক হয়ে গেল। ফলে শয়তান তার পিছু নিল এবং অবশেষে সে বিপথগামীদের অন্তর্ভুক্ত হল। আর আমরা ইচ্ছা করলে তার (সেই নিদর্শনসমূহের) মাধ্যমে তার মর্যাদাকে উন্নীত করতাম। কিন্তু সে স্থায়ীভাবে পৃথিবীতে (দুনিয়াপ্রেমে) আবদ্ধ হল এবং স্বীয় প্রবৃত্তির অনুসরণ করল। তার দৃষ্টান্ত ঐ কুকুরের ন্যায় যে জিহ্বা বের করে হাঁপাতে থাকে, আর তুমি যদি তাকে ছেড়ে দাও তবুও সে জিহ্বা বের করে হাঁপাতে থাকে। এই হল ঐ জাতির দৃষ্টান্ত যারা আমাদের আয়াতসমূহ মিথ্যা প্রতিপন্ন করেছিল। সুতরাং (হে রাসূল!) এ বৃত্তান্তগুলো বর্ণনা কর যাতে তারা চিন্তা করে।

সূরা আ’রাফ, আয়াত: ১৭৫ ও ১৭৬। 

যদিও এই আয়াতগুলিতে বালয়াম বাউরার নাম উল্লেখ করা হয়নি, তবে কিছু নিদর্শন এবং ধর্মীয় বুজুর্গদের কিছু রেওয়ায়ত ও হাদিস অনুসারে, এই আয়াতে এমন নিদর্শন রয়েছে যে, বলা যেতে পারে যে এই আয়াতগুলি "বালয়াম বাউরা-কে নির্দেশ করা হয়েছে। সম্ভবত এই ব্যক্তির নাম উল্লেখ না করার কারণ এই যে, কোনো যুগে এমন আলেম খুঁজে পাওয়া যাবে, যারা জ্ঞান ও হেদায়েত থাকা সত্ত্বেও ঈমানের দিক থেকে বিচ্যুতি ও দুর্বলতার শিকার হন।

সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha