IQNA

20:28 - March 26, 2020
সংবাদ: 2610483
তেহরান (ইকনা)- কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফে রোহিঙ্গা শিবিরে বিদেশ ফেরত একটি পরিবারের চারজনসহ পাঁচজনকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এছাড়াও বুধবার (২৫ মার্চ) করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে এখানকার ৩৪টি রোহিঙ্গা শিবিরে মানবিক সেবা কার্যক্রম সীমিত করার নির্দেশনা দিয়েছে কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়। করোনা ভাইরাস নিয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতিতে ক্যাম্পে কার্যক্রম সীমিত করা হলেও রোহিঙ্গা শিবির নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন স্থানীয়রা।

রোহিঙ্গা শিবিরে মানবিক সেবা কার্যক্রমে বিপুল সংখ্যক বিদেশির পাশাপাশি কাজ করছে প্রায় ২০ হাজার বাংলাদেশি। ক্যাম্পে কর্মরত দেশি-বিদেশি বিপুল সংখ্যক মানুষ প্রতিদিন স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সঙ্গে মিশে যাচ্ছে, বাড়ি-ঘরে আসছে। ফলে স্থানীয়দের করোনা আক্রান্তের ঝুঁকি বাড়ছেই।

এমন পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গা শিবিরে কর্মরত দেশি-বিদেশি সব সংস্থাকে শুধুমাত্র খাদ্য, চিকিৎসা, আইনশৃঙ্খলাসহ অতি জরুরি কিছু কার্যক্রম ছাড়া বাকি সব কার্যক্রম সীমিত করার নির্দেশনা দিয়েছে কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসনের কার্যালয়।

কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. মাহবুব আলম তালুকদার বাংলানিউজকে বলেন, খাদ্য, চিকিৎসা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ অতি জরুরি সেবা কার্যক্রম চালু থাকবে। বাকি সব কার্যক্রম সীমিত করা হয়েছে। অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ক্যাম্পে যাবে না।

‘অনেক আগেই শিবিরের অভ্যন্তরে থাকা সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিশুবান্ধব কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিদেশি কোনো ভিজিটর আসলেই আগের মতো রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। সে বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। অতি জরুরি প্রয়োজনে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে কোনো বিদেশি ক্যাম্পে যেতে পারবেন। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে রোহিঙ্গাদের সচেতন করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনাগুলো মিয়ানমারের এবং ইংরেজি ভাষায় প্রকাশ করে বিলি করা হচ্ছে। করোনা ভাইরাস যেহেতু ছোঁয়াছে রোগ এবং ক্যাম্প যেহতু ঘনবসতিপূর্ণ তাই রোহিঙ্গাদের জনসমাগম এড়াতে মসজিদের নামাজ ঘরে আদায় করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া ফেরত এক রোহিঙ্গা এবং ভারত থেকে আসা একপরিবারের চারজনকে কুতুপালং ইউএনএইচসিআর-এর ট্রানজিট ক্যাম্পে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এছাড়াও করোনায় ঝুঁকিপূর্ণ রোহিঙ্গাদের আলাদা করে রাখার জন্য ইতিমধ্যে ক্যাম্পের হাসপাতালগুলোতে ৪৭টি শয্যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়াও ১৫০ শয্যা প্রস্তত আছে, যা প্রয়োজনে ব্যবহার হবে।

এ পর্যন্ত বাংলাদেশে কারোনাভাইরাসে ৪৪ জন আক্রান্ত ও ২৮ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন এবং ১১ জন সুস্থ হয়েছেন ও ৫ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এছাড়াও ৬৪৪৪ জন কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন।  iqna

 

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: