IQNA

19:40 - January 25, 2021
সংবাদ: 2612159
তেহরান (ইকনা): আগামী মাসে ডেট্রয়েটের শীর্ষ ফেডারাল প্রসিকিউটর হিসাবে দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত সায়মা মহসিন। ফেডারেল কর্মকর্তা এবং মুসলিম আইনজীবীদের মতে, তিনিই হচ্ছেন মিশিগান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম মুসলিম ইউএস অ্যাটর্নি।
মিশিগানের পূর্বাঞ্চলীয় অঞ্চলে তিন বছর দায়িত্ব পালন করার পরে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন বর্তমান ইউএস অ্যাটর্নি ম্যাথিউ শ্নাইডার। ১ ফেব্রুয়ারি তার বদলে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন সায়মা মহসিন। বর্তমানে ৫২ বছর বয়সী সায়মা পূর্ব মিশিগানের সহকারী ইউএস অ্যাটর্নি হিসাবে কর্মরত রয়েছেন।
 
পাকিস্তানে জন্ম নেয়া মহসিন যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক দশক ধরে ফেডারেল প্রসিকিউটর হিসাবে কাজ করছেন। তিনি ২০০২ সাল থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি অফিসে কর্মরত ছিলেন। এশীয় বংশোদ্ভূত অভিবাসী ও প্রথম মুসলিম হিসাবে তিনি রাজ্যের পূর্ব অংশের প্রধান ফেডারেল আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তা হতে যাচ্ছেন। যুক্তরাষ্ট্রের বৈচিত্র্যতা তুলে ধরতে তার এই অবস্থান খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
 
সায়মা এর আগে ইউএস অ্যাটর্নি অফিসে ভায়োলেন্ট অ্যান্ড অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিট, ড্রাগ টাস্ক ফোর্স এবং জেনারেল ক্রাইম ইউনিটে দায়িত্ব পালন করেছেন বলে এক বিবৃতিতে ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস জানিয়েছে।
 
তার বিষয়ে শ্নাইডার বলেন, ‘আমার জানা মতে সেরা ফেডারেল প্রসিকিউটরদের একজন সায়মা মহসিনের হাতে এই অফিসটি ছেড়ে চলে যেতে পেরে আমি অত্যন্ত সন্তুষ্ট।’ তিনি বলেন, ‘সায়মা একজন প্রগতিশীল বিচারের আইনজীবী এবং একজন মেধাবী ব্যবস্থাপক।
 
আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম মহিলা, অভিবাসী, মুসলিম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি হিসাবে তার ভূমিকা সত্যিই ঐতিহাসিক। সায়মা ভারপ্রাপ্ত ইউএস অ্যাটর্নি হিসাবে আমাদের একজন অসাধারণ প্রতিনিধি এবং কমিউনিটির রক্ষক হবেন
 
মুসলিম অ্যাডভোকেসি এবং নাগরিক অধিকার রক্ষায় কাজ করা ‘কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেশনস’ (সিএআইআর) এর দু’জন নেতা সংবাদ মাধ্যম ফ্রি প্রেসকে বলেন, তাদের জানামতে কোন মুসলিম এর আগে কখনো ইউএস অ্যাটর্নি বা ভারপ্রাপ্ত ইউএস অ্যাটর্নি হননি। সায়মাই প্রথম মুসলিম ও পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত হিসাবে ইউএস অ্যাটর্নি হয়েছেন বলে তারা মনে করেন।
 
এ বিষয়ে সিএআইআর’র আইনজীবী গায়দার আব্বাস বলেন, ‘আমার বিশ্বাস, এর আগে কোন মুসলিম কখনো ইউএস অ্যাটর্নি পদে বসেন নি।’ উল্লেখ্য, মিশিগানে প্রচুর মুসলমান বসবাস করেন যাদের মধ্যে পাকিস্তান-আমেরিকানরা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে রয়েছেন। অঞ্চলটি জুড়ে বেশ কয়েকটি মসজিদও রয়েছে।
 
এর আগে কিছু মুসলিম মিশিগানে প্রসিকিউটর অফিসে অ্যাটর্নি পদে নিয়োগ পেয়েছিলেন। প্রথম মুসলিম হিসাবে মিশিগানের সলিসিটার জেনারেল হয়েছিলেন ফাদওয়া হাম্মুদ। ‘ফ্লিন্ট ওয়াটার’ তদন্তে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য তাকে অ্যাটর্নি জেনারেল ডানা নেসেল নিযুক্ত করেছিলেন। তবে এখনও পর্যন্ত কোন মুসলিম কোনও শীর্ষস্থানীয়  ফেডারেল প্রসিকিউটর পদে নিয়োগ পাননি।
 
সায়মা মহসিন নিউ জার্সির রুটজার্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক এবং আইনের উপরে ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি নিউইয়র্ক সিটিতে সহকারী জেলা অ্যাটর্নি হয়েছিলেন এবং তারপরে নিউ জার্সির ফৌজদারি বিচার বিভাগের পক্ষ থেকে রাজ্যের হয়ে কাজ করেছিলেন। তিনি সংগঠিত অপরাধ ও জালিয়াতির ক্ষেত্রে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।
 
তিনি ২০০২ সালে মিশিগানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি অফিসে কাজ শুরু করেছিলেন। তার বিষয়ে ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে,  ‘বিভিন্ন ধরণের মামলা পরিচালনার ক্ষেত্রে সায়মার তাৎপর্যপূর্ণ অভিজ্ঞতা রয়েছে।’
 
এক বিবৃতিতে সায়মা মহসিন বলেছেন, ‘ভারপ্রাপ্ত ইউএস অ্যাটর্নি হিসাবে মিশিগানের পূর্ব জেলার নাগরিকদের প্রতি দায়িত্ব পালন করা আমার পক্ষে এক বড় সম্মানের বিষয়।’ তিনি বলেন, ‘বিশ্বস্তভাবে আইন কার্যকর করা এবং সবার জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। এই দায়িত্ব পালন করার জন্য আমি আন্তরিক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’ iqna
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: