IQNA

3:29 - May 14, 2022
সংবাদ: 3471848
তেহরান (ইকনা): মানুষ ভুল এবং গোনাহের মধ্যে জীবন যাপন করে। তবে এমন কিছু আদর্শ রয়েছে যারা ভুল এবং গোনাহ তো করেনই না; বরং এগুলো থেকে অনেক দূরে থাকেন। তাঁরা ঈমানী এবং আধ্যাত্মিকতার শক্তিতে পরিপূর্ণ। পবিত্র কুরআন এবং হাদীসে ঈমানদার ব্যক্তিদের জন্য এসকল মহামানবদের উত্তম আদর্শ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে কেন এসকল উত্তম আদর্শের অধিকারীগণ সবচেয়ে বেশী অশ্রু ঝরান, অনুতাপ করেন এবং ইস্তেগফার (তওবা বা ক্ষমা প্রার্থনা) করেন? তাহলে কি তাঁরা অনেক বেশী গোনাহ করেন?

মানুষ ভুল এবং গোনাহের মধ্যে জীবন যাপন করে। তবে এমন কিছু আদর্শ রয়েছে যারা ভুল এবং গোনাহ তো করেনই না; বরং এগুলো থেকে অনেক দূরে থাকেন। তাঁরা ঈমানী এবং আধ্যাত্মিকতার শক্তিতে পরিপূর্ণ। পবিত্র কুরআন এবং হাদীসে ঈমানদার ব্যক্তিদের জন্য এসকল মহামানবদের উত্তম আদর্শ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে কেন এসকল উত্তম আদর্শের অধিকারীগণ সবচেয়ে বেশী অশ্রু ঝরান, অনুতাপ করেন এবং ইস্তেগফার (তওবা বা ক্ষমা প্রার্থনা) করেন? তাহলে কি তাঁরা অনেক বেশী গোনাহ করেন?

বর্ণিত আছে যে, নবী কারিম (সা.) দৈনিক ৭০ বার ইস্তেগফার করতেন। মহান আল্লাহর আউলিয়াদের দোয়া, যেমন: দোয়া ইফতিতাহ, দোয়া আবু হামজা ছোমালি, দোয়া কুমাইল ইত্যাদি। এসকল দোয়ার মধ্যে সর্বোচ্চ অনুশোচনার প্রকাশ পায় এবং গুনাহ ত্যাগ করার সিদ্ধান্তের কথা ফুটে ওঠে। আউলিয়া এবং ইমামগণের ইস্তেগফার এবং ক্রন্দনের রহস্য কী?

সাধারণত আমরা নির্দোষদের কথা ভাবি, কারণ তারা গুনাহ করে না এবং তারা ভুল থেকে মুক্ত খাঁটি মানুষ, তাই তাদের ক্ষমা চাওয়াটা আমাদের কাছে অদ্ভুত লাগে। তদনুসারে, আমরা মনে করি যে বৃহৎ দোয়া আবু হামজা ছুমালিতে বলা হয়েছে:

«لَعَلَّكَ رَاَيتَني آلِفَ مَجالِسِ الْبَطّالينَ »

আমি অনর্থকদের সাথে বসেছি।

অথবা স্বয়ং হযরত মুহাম্মাদ (সা.) বলেছেন:

«اللهم لا تکلنی إلی نفسی طرفة عین أبدا».

হে আল্লাহ! আমাকে এক মুহূর্তের জন্য একা ছেড়ে যেও না।

প্রশ্ন হল, এই মহামানবরা কেন এমন করলেন?

উত্তর হল, যার পদমর্যাদা যত বেশি এবং তিনি আল্লাহর তত কাছাকাছি অবস্থান করেন এবং তত বেশি আল্লাহর জন্য তার প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পারেন। আমরা এই প্রয়োজন কম বুঝি এবং আমরা বুঝতে পারি না যে আমরা আল্লাহর সামনে কতটা দরিদ্র।
নবী (সা:) বলেছেন: «الفقر فخری» । এই হাদীসে দরিদ্রতা বলতে বোঝানো হয়েছে মহান আল্লাহর সাথে তার অস্তিত্বের সম্পর্ক।

তাই পবিত্র কুরআনে বিশেষ বান্দাদের বলা হয়েছে ‘আওয়াব’ অর্থাৎ যারা অনেক বেশি তওবা করেন এবং অনুতপ্ত হন এবং সর্বদা আল্লাহর দিকে ফিরে যায়। ‘আওয়াব’ শব্দটি কুরআনে মোট চারবার উল্লেখ রয়েছে। iqna

 

 

সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* captcha: