IQNA

মহান ধার্মিকদের কবরের উপর মসজিদ নির্মাণের ব্যাপারে কুরআনী যুক্তি

0:02 - October 06, 2022
সংবাদ: 3472594
তেহরান (ইকনা):  সূরা আল-কাহফের ২১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে যে, ঐশী ওলীদের কবরের পাশে মসজিদ নির্মাণ করা শুধু জায়েযই নয়, বরং এ ব্যাপারে সুপারিশও করা হয়েছে।
ঐশ্বরিক সাধকদের কবর জিয়ারত করার নীতিটি সমস্ত ইসলাম ধর্ম এমনকি ওয়াহাবিবাদ দ্বারা গৃহীত হয়। কিন্তু ওহাবীরা বিশ্বাস করে যে, যখন কোন ব্যক্তি মারা যায়, তখন তার মামলা বন্ধ হয়ে যায় এবং কোন দান-খয়রাত যেমন কুরআন তিলাওয়াত ইত্যাদির সওয়াব তার কাছে পৌঁছাবে না। তারা কবর যিয়ারতকে একটি শর্তের মধ্যে সীমাবদ্ধ করে, আর তা হল একজন ব্যক্তি কেবল পরকালের কথা স্মরণ করার জন্য কবর জিয়ারত করতে পারে এবং যদি সে কাঁদে তবে সে কেবল নিজের এবং তার পাপের জন্য কাঁদতে পারে।
কিন্তু ইসলামি শিক্ষা ও নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর বাণী থেকে আমরা যা পেয়েছি তা আমাদের ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি দেখায়। রাসুলুল্লাহ (সা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, যে আমার মৃত্যুর পর হজ্জ করবে এবং আমার কবর জিয়ারত করবে, সে যেন আমার জীবদ্দশায় আমাকে জিয়ারত করেছে এবং তিনি আরও বর্ণনা করেছেন যে, যে হজ করে এবং আমার কবর জিয়ারত করতে আসেনি, সে আমাকে নির্যাতিত করেছে। 
ধর্মীয় নেতাদের কবরের ওপর মসজিদ নির্মাণের অনুমতি
সূরা আল-কাহফের ২১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে যে, ঐশী ওলীদের কবরের পাশে একটি মসজিদ নির্মাণ করা শুধু জায়েযই নয়, বরং এ ব্যাপারে সুপারিশও করা হয়েছে। 
وَكَذَٰلِكَ أَعْثَرْنَا عَلَيْهِمْ لِيَعْلَمُوا أَنَّ وَعْدَ اللَّهِ حَقٌّ وَأَنَّ السَّاعَةَ لَا رَيْبَ فِيهَا إِذْ يَتَنَازَعُونَ بَيْنَهُمْ أَمْرَهُمْ ۖ فَقَالُوا ابْنُوا عَلَيْهِمْ بُنْيَانًا ۖ رَبُّهُمْ أَعْلَمُ بِهِمْ ۚ قَالَ الَّذِينَ غَلَبُوا عَلَىٰ أَمْرِهِمْ لَنَتَّخِذَنَّ عَلَيْهِمْ مَسْجِدًا
 
এরূপে আমরা (তাদের সম্প্রদায়কে) তাদের অবস্থা সম্পর্কে অবহিত করলাম যাতে তারা অবগত হয় যে, আল্লাহর প্রতিশ্রুতি অবশ্যই সত্য এবং কিয়ামতে কোন সন্দেহ নেই। যখন তারা তাদের ব্যাপারে নিজেদের মধ্যে বিবাদ করতে লাগল তখন তারা (কিছু সংখ্যক লোক) বলল, ‘তাদের (গুহার) ওপর সৌধ নির্মাণ করা হোক, তাদের প্রতিপালক তাদের সম্বন্ধে সর্বাধিক অবহিত’; এবং যারা তাদের বিষয়ে প্রাধান্য লাভ করেছিল তারা বলল, ‘অবশ্যই আমরা তাদের ওপর মসজিদ নির্মাণ করব।

 

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha