IQNA

তাফসীর ও মুফাস্সিরদের পরিচয় / ৮

শিয়া মুসলমানদের প্রথম সম্পূর্ণ তাফসির গ্রন্থ আত-তিবইয়ান

23:58 - November 25, 2022
সংবাদ: 3472878
তেহরান (ইকনা): তাফসির শরীফ "আল- তিবইয়ান ফি তাফসির আল-কুরআন" শেখ তুসি রচিত পবিত্র কুরআনের প্রথম তাফসির যা একজন শিয়া আলেম লিখেছেন। এই তাফসির গ্রন্থে পবিত্র কুরআনের সমস্ত সূরা ও আয়াত নিয়ে কাজ করা হয়েছে।

এই তাফসীরটিতে সমস্ত ধরণের কুরআনিক বিজ্ঞান এবং কৌশল অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, যেমন ব্যবহার, বাক্য গঠন, উদ্ভব, অর্থ, ভাব, হাদিস, আইনশাস্ত্র, ধর্মতত্ত্ব এবং ইতিহাস।
মুহাম্মদ বিন হাসান বিন আলী বিন হাসান, যিনি শেখ তুসি এবং শাইখুত তায়েফা নামে পরিচিত, তিনি হাদীস ও আইনশাস্ত্রের ক্ষেত্রে অন্যতম বিখ্যাত শিয়া গবেষক ও আলেম। শেখ তুসি ২৩ বছর বয়সে খোরাসান থেকে ইরাকে আসেন এবং শেখ মুফিদ এবং সাইয়্যেদ মোর্তেজার মতো শিক্ষকদের উপস্থিতিতে তিনি শিক্ষা অর্জন করেন। আব্বাসীয় খলিফা আল-কাইম বিআমরুল্লাহ তাকে বাগদাদে ধর্মতত্ত্ব শিক্ষার দায়িত্ব দেন।
এরপর তিনি নাজাফে যান এবং সেখানে তাঁর শিক্ষা, এলমী এবং বৈজ্ঞানিক কার্যক্রম শুরু করেন। শে তুসি নাজাফের বিশৃঙ্খল শিক্ষাগত পরিস্থিতি সংগঠিত করতে এবং স্টাডি সার্কেল সংগঠিত করতে সক্ষম হন এবং শীঘ্রই নাজাফ শহরটি শিয়া মতবাদের বৈজ্ঞানিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক কেন্দ্র দখল করে নেয়।
শেখ তুসি বাগদাদের যুক্তিবাদী ধর্মতাত্ত্বিক বিদ্যালয়ের অন্যতম নেতা ছিলেন এবং তার শিক্ষকদের পদ্ধতি অব্যাহত রেখেছেন ও সুসজ্জিত করেছেন।
তিনি ধর্মীয় বিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বই লিখেছেন এবং শিয়া বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের মধ্যে যে প্রভাব খুঁজে পেয়েছেন এবং অনেক ছাত্রকে প্রশিক্ষিত করেছেন তার কারণে তিনি শিয়া পণ্ডিতদের চিন্তাধারায় দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলেছেন। শিয়া আইনশাস্ত্র ও বিশ্বাসে ইজতিহাদ এবং যুক্তিবাদ শেখ তুসির প্রচেষ্টায় শিয়াদের মধ্যে প্রভাবশালী পদ্ধতিতে পরিণত হয় এবং কয়েক শতাব্দী ধরে আখবারী ভিত্তিক পদ্ধতির আধিপত্যের অবসান ঘটে।
তাকে আইনশাস্ত্র ও ইজতিহাদের নীতির বিজ্ঞানের পুনরুজ্জীবনকারী এবং শিয়া আইনশাস্ত্রে ইজতিহাদ নিয়ে আসা প্রথম ব্যক্তি হিসেবে গণ্য করা হয়।
" আত-তিবইয়ান"-এ শেইখুত তাইফাহে’র তাফসিরী পদ্ধতি
শুরুতে উল্লেখ করা হয়েছে, কিতারে আল-তিবইয়ান হচ্ছে শিয়া আলেম দ্বারা লিখিত প্রথম তাফসীর যাতে কুরানের সমস্ত সূরা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
শেখ তুসির পূর্বে শিয়াদের তাফসিরে শুধুমাত্র কুরআনের আয়াতের তাফসির বর্ণনা উদ্ধৃত করার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল।
শিয়া ও সুন্নি উভয় পণ্ডিতের মতামতের প্রতি শেখ তুসির মনোযোগ এবং অন্যান্য মুসফাস্সিরের ব্যাখ্যামূলক মতামতের সমালোচনা ও পর্যালোচনা, প্রাক-ইসলামিক আরব সাহিত্য গ্রন্থের ব্যবহার এবং কুরআনের কঠিন শব্দ এবং পাঠের পার্থক্য এবং কুরআনের আয়াতের আইনশাস্ত্রীয়, ধর্মতাত্ত্বিক এবং অলঙ্কৃত বিষয় সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করা এই ব্যাখ্যার বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে রয়েছে।
কুরআনের আয়াতের উল্লেখ করে, শেখ তুসি কুরআনকে এমন একটি পাঠ্য হিসাবে বিবেচনা করেন যা মানুষের আক্বল দ্বারা বোঝা যায় এবং একমাত্র হাদীসের মাধ্যমে কুরআন বোঝা যায় এই সম্পর্কিত সকল হাদীস প্রত্যাখ্যান করেছেন।
তাফসিরে তিবইয়ান "মাল্টি-সোর্স" বা "ব্যাপক" বলে মনে করা হয়। এই পদ্ধতিতে, মুফাস্সির তার তাফসিরে কুরআন, রেওয়াত এবং যুক্তির মতো বিভিন্ন ব্যাখ্যামূলক উৎস এবং নথি ব্যবহার করেন।
প্রতিটি সূরার সাথে সম্পর্কিত বিষয়বস্তুর প্রকৃতি ও বিন্যাস এমন যে, শুরুতেই সূরার নাম এবং তা মক্কী বা মাদানী এবং এর অন্যান্য বৈশিষ্ট্যের কথা বলা হয়েছে। শব্দের আভিধানিক অর্থ, পাঠের পার্থক্য, সারফ ও নাহুর বিভিন্ন পয়েন্ট এবং বালাগাতের বিষয় এবং তারপর আয়াতের বর্ণনা ও ব্যাখ্যা এবং এ সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত বইটির অন্যান্য বিষয়বস্তুর মধ্যে রয়েছে।

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha