IQNA

কুরআন কি বলে/১০

হেদায়েতের শত্রু কিভাবে মানুষের উন্নতির পথ দেখায়

23:14 - June 22, 2022
সংবাদ: 3472030
তেহরান (ইকনা):  ঐশ্বরিক পথে নির্দেশনার ক্ষেত্রে বাধা প্রদানের জন্য অনেক শত্রু রয়েছে। এসকল শত্রুদের প্রভাবের উপায়গুলি জানার জন্য প্রথমে আমাদের দুর্বলতাগুলি খুঁজে বের করা ভাল।
মানুষ সৃষ্টির শুরু থেকেই শয়তান সর্বদাই মানুষকে বিভিন্নভাবে আল্লাহর কাছে যাওয়া থেকে বিরত রাখতে এবং তাকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছে। পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহ মানুষকে এই শত্রুর ব্যাপারে অবগত করেছেন এবং তার অনেক প্রতারণার কথা উল্লেখ করেছেন এবং মানুষকে সতর্ক করেছেন।
শয়তানের মূল উদ্দেশ্য হল মানুষকে প্রতারিত করে তাকে আল্লাহর অবাধ্য করা এবং মূর্তিপূজা ও অত্যাচারের প্রবণতার দিকে ঝুঁকিয়ে দেওয়া। মানুষ শয়তানের আমন্ত্রণ গ্রহণ বা প্রত্যাখ্যান করার ব্যাপারে সম্পূর্ণ স্বাধীন। এ ব্যাপারে পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে: 
متوجه خود انسان است. «وَقَالَ الشَّيْطَانُ لَمَّا قُضِيَ الْأَمْرُ ... وَمَا كَانَ لِيَ عَلَيْكُمْ مِنْ سُلْطَانٍ إِلَّا أَنْ دَعَوْتُكُمْ فَاسْتَجَبْتُمْ لِي فَلَا تَلُومُونِي وَلُومُوا أَنْفُسَكُمْ..
যখন সমস্ত বিষয় নিষ্পত্তি হয়ে যাবে তখন শয়তান বলবে, ‘আল্লাহ তোমাদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন- সত্য প্রতিশ্রুতি এবং আমিও তোমাদের কিছু প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, কিন্তু আমি তোমাদের সাথে প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেছি। তবে তোমাদের ওপর তো আমার কোন আধিপত্য ছিল না। আমি কেবল তোমাদের আহ্বান করেছিলাম; আর তোমরা তাতে সাড়া দিয়েছিলে। সুতরাং তোমরা আমাকে তিরস্কার কর না; বরং নিজেদের তিরস্কার কর। (আজ) না আমি তোমাদের সাহায্য করতে সক্ষম, আর না তোমরা আমাকে সাহায্য করতে পার, তোমরা যে পূর্বে আমাকে (আল্লাহর সাথে) অংশী করেছিলে আমি তা অস্বীকার করছি।’ নিশ্চয় যারা অবিচারক তাদের জন্য রয়েছে মর্মন্তুদ শাস্তি।
সূরা ইব্রাহীম, আয়াত ২২। 
পবিত্র কুরআনে শয়তানের প্রভাবের অনেক উপায় বর্ণনা করা হয়েছে:
«...لَا تَتَّبِعُوا خُطُوَاتِ الشَّيْطَانِ وَمَنْ يَتَّبِعْ خُطُوَاتِ الشَّيْطَانِ فَإِنَّهُ يَأْمُرُ بِالْفَحْشَاءِ وَالْمُنْكَرِ...
হে বিশ্বাসীগণ! তোমরা শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ কর না এবং যে শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে (তাকে সে বিভ্রান্ত করে), কেননা, সে (শয়তান) অশ্লীল ও মন্দ কর্মের নির্দেশ দান করে। তোমাদের প্রতি যদি আল্লাহর অনুগ্রহ ও করুণা না থাকত, তবে তোমাদের কেউই কখনও পরিশুদ্ধ হতে পারত না; তবে আল্লাহ যাকে ইচ্ছা পরিশুদ্ধ করেন এবং আল্লাহ সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ।
সূরা নূর, আয়াত: ২১।
শয়তান বিভাবে মানুষকে ধোঁকা দেয় তা বর্ণনা করার জন্য পবিত্র কুরআনে "শয়তানের পদচিহ্ন" শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে। শয়তান মানুষকে ধাপে ধাপে পাপের দিকে নিয়ে যায়।
...فَزَيَّنَ لَهُمُ الشَّيْطَانُ أَعْمَالَهُمْ فَهُوَ وَلِيُّهُمُ الْيَوْمَ وَلَهُمْ عَذَابٌ أَلِيمٌ
শপথ আল্লাহর, নিঃসন্দেহে তোমার পূর্ববর্তী জাতিদের নিকটও (বহু রাসূল) প্রেরণ করেছিলাম। কিন্তু শয়তান তাদের ক্রিয়াকর্মকে তাদের দৃষ্টিতে শোভন করে প্রদর্শন করেছিল। সুতরাং আজ সেই তাদের অভিভাবক এবং তাদের জন্য রয়েছে বেদনাদায়ক শাস্তি।
সূরা নাহল, আয়াত: ৬৩। 
কুরআনের বিশিষ্ট শিক্ষক আয়াতুল্লাহ মোহসেন ক্বারায়াতী এই আয়াতের তাফসীরে বলেন: 
১। শয়তান যেভাবে মানুষকে প্রভাবিত করার তা হল, কদর্যতা দেখানো ও শোভিত করা এবং বিচ্যুতিগুলোকে জায়েজ করা।
. «فَزَيَّنَ لَهُمُ الشَّيْطانُ أَعْمالَهُمْ»
কিন্তু শয়তান তাদের ক্রিয়াকর্মকে তাদের দৃষ্টিতে শোভন করে প্রদর্শন করেছিল।
 
২। শয়তানের প্রতারণা স্বীকার করার মাধ্যমে তার আধিপত্যের সূচনা ঘটে।
শয়তানের বহিঃপ্রকাশ গ্রহণ করা তার আধিপত্যের সূচনা।
... فَهُوَ وَلِيُّهُمُ
সুতরাং আজ সেই তাদের অভিভাবক।
 
মুমিনের মনে দুঃখ সঞ্চারিত করা এবং তাকে আল্লাহর পথে চলতে অনুপ্রেরণাহীন করা, মানুষের চিন্তা থেকে আল্লাহর স্মরণ দূর করা, মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেওয়া এবং আরও অনেক প্রতারণা শয়তানের অনুপ্রবেশের উপায়; পবিত্র কুরআন মানুষকে এসকল প্রতারণার ব্যাপারে সতর্ক করেছে।
 
সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha