IQNA

ইসলামী বিশ্বের বিখ্যাত আলেমগণ / 8

কুরআনের নারীদের অবস্থানের ব্যাখ্যার প্রয়াসে মিশরীয় গবেষক

20:54 - December 06, 2022
সংবাদ: 3472948
তেহরান (ইকনা): ডক্টর ফাওজিয়া আল-আশমাভি তার বৈজ্ঞানিক জীবনকে কুরআনের অভিব্যক্তিতে নারীর অবস্থান ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করার জন্য উৎসর্গ করেছেন এবং সুনির্দিষ্ট অর্থ সহ কুরআনের আয়াতকে সম্মান করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়ে ধর্মীয় অভিব্যক্তিতে নতুনত্বের সন্ধান করেছিলেন।

ডক্টর ফাওজিয়া আল- আশমাভি জেনেভা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি সাহিত্য ও ইসলামী সভ্যতার অধ্যাপক এবং মিশরীয় এনডোমেন্টস মন্ত্রকের সাথে সংযুক্ত ইসলামিক বিষয়ক সুপ্রিম কাউন্সিলের প্রাক্তন সদস্য ও ইউনেস্কোর একজন পরামর্শক। তিনি গত মাসে জেনেভায় ইন্তেকাল করেছেন। তিনি কুরআনের ধর্মীয় সম্বোধন, ধর্মীয় ভাষণে আধুনিকতা, ধর্মীয় ভাষণ ও কুরআনের তাফসিরের ক্ষেত্রে যুক্তির গুরুত্ব, সেইসাথে ইসলাম ও বর্তমান ইসলামী সমাজে বিশেষ করে মিশরে নারীদের অবস্থান এবং নারীর সুরক্ষায় আইন অনুমোদনের প্রয়োজনীয়তা ও নারীর বিরুদ্ধে অন্যায্য বিধিনিষেধ আরোপের বিরুদ্ধ তার জীবনকে উৎসর্গ করেছেন।
ফাওজিয়া আব্দুল মোনয়েম আল-আশমাভি বিংশ শতাব্দীর চল্লিশের দশকের প্রথম দিকে আলেকজান্দ্রিয়ায় (মিশর) জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৫ সালে তিনি আলেকজান্দ্রিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফরাসি ভাষায় স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন এবং তারপরে তিনি তার পড়াশোনা চালিয়ে যেতে জেনেভা যান, যেখানে তিনি ফরাসি সাহিত্যে তার ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তিনি বলেন যে, তার তত্ত্বাবধায়ক, যিনি ইহুদিও ছিলেন, তাকে ফ্রান্সের পরিবর্তে আরব বিশ্বের সমসাময়িক বিষয়গুলি নিয়ে গবেষণা করতে বলেছেন। তিনি "নাজিব মাহফুজের রচনায় একটি কেস স্টাডি সহ মিশরীয় নারীর অবস্থার বিবর্তন" বিষয়ের উপর তার ডক্টরেট থিসিস গ্রহণ করেছেন এবং লিখেছেন। তিনি জেনেভা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে কাজ করেন এবং একই পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেন। ইসলামিক স্টাডিজের এই বিশিষ্ট অধ্যাপক গত মাসে জেনেভায় ৮০ বছর বয়সে মারা যান।
তার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে " কোরানের সম্বোধনে নারী” বইটি বিবেচনা করা যেতে পারে। তিনি জোর দিয়েছিলেন যে, হযরত মুহাম্মাদ (সা.) মক্কায় বসবাসের সময় মুশরিকদের ব্যাপক বিরোধিতার মুখোমুখি হয়েছেন এবং এই বিরোধিতা সংঘর্ষ ও যুদ্ধের পর্যায়ে পৌঁছেছিল, তাই মক্কায় কুরআনের ভাষণকে মানুষের কাছে একেশ্বরবাদের প্রবর্তন হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। এই যুগে কুরআনের সম্বোধন ছিল ইসলাম গ্রহণের আমন্ত্রণ, কিন্তু এই যুগে সমাজে নারীদের তেমন ভূমিকা ছিল না। মাক্কী সূরাগুলিতে, মহিলারা পুরুষদের ছায়ায় ছিল, তাই কিছু মহিলাকে নবীদের স্ত্রী বা মিশরের ফেরাউন ও উজিরের স্ত্রী হিসাবে পরিচয় দিয়েই তাদের উল্লেখ করা হয়েছে।
কিন্তু মহানবী (সা.)-এর মদিনায় হিজরতের পর আমরা ভিন্ন সমাজের সম্মুখীন হচ্ছি; একটি সমাজ যেখানে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য রয়েছে এবং এখানে কুরআনের আয়াত পুরুষদের পাশে নারীদের স্থান দেয়। মাদানী আয়াতে মুমিনদের পাশে মুমিনাতদের উল্লেখ করা হয়েছে এবং মুসলমানদের পাশে মুসলিমাতদের উল্লেখ করা হয়েছে। সাধারণভাবে, এটা বলা যেতে পারে যে মাদানী সূরাগুলিতে মহিলাদেরকে পুরুষদের সমান স্তরে রাখে, এমনভাবে যে নির্দিষ্ট সূরা এবং আয়াতগুলি, যেমন সূরা মুমতাহানা এবং সূরা মুজাদালাহে নারীদের অধিকার সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha