IQNA

 কুরআনের সূরাসমূহ/২৩

সূরা মু’মিনূনে প্রকৃত মু’মিনদের ১৫টি বৈশিষ্ট্য

19:25 - August 12, 2022
সংবাদ: 3472273
তেহরান (ইকনা): মাক্কী সুরাসমূহের মধ্যে একটি হচ্ছে সূরা মু’মিনূন। এই সূরায় প্রকৃত মু’মিন বা বিশ্বাসীদের বৈশিষ্ট্যগুলি বর্ণনা করা হয়েছে। যাঁরা অযথা কথা-বার্তা বলা এবং নিরর্থক কাজ এড়িয়ে যান এবং পবিত্রতার সাথে জীবন যাপন করেন, তাদের কথাই এই সূরায় বলা হয়েছে।
পবিত্র কুরআনের ২৩তম সূরা হচ্ছে সূরা মু’মিনূন। ১৮ পারায় অবস্থিত এই সূরায় মোট ১১৮টি আয়াত রয়েছে। নাযিলের ক্রমানুসারে এই সূরটি ৭৪তম সূরা যা মদিনায় হিজরত করার কিছু দিন আগে প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)এর উপর নাযিল হয়েছে। এই সূরার প্রথম আয়াতে  (قد افلح المؤمنون) মু’মিনদের পরিত্রাণ ও বিজয়ের কথা উল্লেখ থাকার কারণে এই সূরার নাম “মু’মিনূন” রাখা হয়েছে। প্রথম আয়াতের পর মু’মিনদের বৈশিষ্ট্যসমূহের মধ্যে ১৫টি বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করা হয়েছে।
নিরর্থক কাজ করা এবং অযথা কথা বলা প্রত্যাখ্যান করা, ভাল কাজের অগ্রগামী হওয়া, হযরত মুসা (আ.)এবং হযরত নূহ (আ.)এর কাহিনী, মানুষের সৃষ্টি এবং পুনরুত্থান এই সুরের অন্যান্য বিষয়।
আল্লামা তাবাতাবায়ী তার আল –মিজান তাফসিরে আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস এবং কিয়ামতের দিনে, বিশ্বাসীদের উত্তম বৈশিষ্ট্য এবং কাফেরদের নৈতিক দুর্বলতা, বিশ্বাসীদের জন্য মহান আল্লাহর সুসংবাদ এবং কাফেরদের জন্য মহান আল্লাহর ভয় ও দুঃসংবাদ এবং এবং তিনি নূহ (আ.) থেকে ঈসা (আ.) পর্যন্ত অতীতের জাতিসমূহের উপর নেমে আসা বিপর্যয়সমূহ সূরা মুমিনুনের অন্যতম প্রধান বিষয় বলে মনে করেন। নমুনা তাফসীরে সূরা মুমিনূনের বিষয়বস্তু ধর্মীয় ও ব্যবহারিক পাঠ এবং জাগরণমূলক বিষয়ের সংকলন এবং শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মুমিনদের পথের বর্ণনা করা হয়েছে।
সূরা মুমিনূনের বিষয়গুলোকে নিম্নরূপ সাতটি ভাগে ভাগ করা যায়:
১। প্রথম অংশ যা সূরার শুরু থেকে শুরু হয়, সেই গুণাবলী প্রকাশ করে যা বিশ্বাসীদের বিজয় ও সাফল্যের কারণ এবং আমরা দেখতে পাব যে এই গুণগুলি এতটাই ব্যাপক যে তারা ব্যক্তি ও সামাজিক জীবনের বিভিন্ন দিককে কভার করে।
 
২। দ্বিতীয় অংশে ধর্মতত্ত্বের বিভিন্ন নিদর্শন তুলে ধরা হয়েছে এবং আকাশ-পৃথিবীতে সৃষ্টি জগতের আশ্চর্য ব্যবস্থা এবং মানুষ, প্রাণী ও উদ্ভিদ সৃষ্টির উদাহরণ পেশ করা হয়েছে।
৩। তৃতীয় অংশে তিনি হযরত নূহ আলাইহিস সালাম, হযরত হুদ আলাইহিস সালাম, হযরত মুসা আলাইহিস সালাম, হযরত ঈসা আলাইহিস সালাম প্রমুখ মহান নবীদের একটি দলের শিক্ষামূলক ইতিহাস বর্ণনা করেছেন এবং তাদের জীবনের কিছু অংশ বর্ণনা করেছেন। 
৪। চতুর্থ অংশে অত্যাচারী এবং অহংকারী লোকদের সম্বোধন করা হয়েছে এবং তাদের যৌক্তিক কারণের সাথে এবং কখনও কখনও তীক্ষ্ণ এবং আকর্ষণীয় অভিব্যক্তি দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে, যাতে প্রস্তুত হৃদয় নিজেদের কাছে আসে এবং মহান আল্লাহর কাছে ফিরে যাওয়ার পথ খুঁজে পায়।
৫। পঞ্চম অংশে, কিয়ামত বা পুনরুত্থান সম্পর্কে গভীরভাবে আলোচনা করা হয়েছে।
৬। ষষ্ঠ অংশে মহাবিশ্বের উপর আল্লাহর সার্বভৌমত্ব এবং সমগ্র বিশ্বে তাঁর আদেশের প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।
৭। সপ্তম অংশে পুনরুত্থান, হিসাব-নিকাশ, উত্তম কর্মের পুরস্কার এবং মন্দ কর্মের শাস্তির কথা বলা হয়েছে এবং মানুষ সৃষ্টির উদ্দেশ্য বর্ণনা করে সূরাটি শেষ করা হয়েছে। 
আর এভাবেই, এই সূরার বিষয়বস্তু হল ধর্মীয় ও ব্যবহারিক পাঠ এবং জাগরণমূলক বিষয়ের সংকলন এবং শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মুমিনদের পথের বর্ণনা করা হয়েছে। 
 
সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha