IQNA

কুরআন কি বলে/১

কাফেররা যখন আল্লাহর নিকট আশ্রয় চায়

20:47 - June 20, 2022
সংবাদ: 3472015
তেহরান (ইকনা): হয়ত এটি আপনার সাথে ঘটেছে যে কখনও কখনও একজন ব্যক্তি নিজেকে এমন পরিস্থিতিতে খুঁজে পায়, যেখানে কেউ তার পরিস্থিতি জানে না বা তাকে সাহায্য করতে পারে না। এমন পরিস্থিতিতে সেই ব্যক্তি "দীর্ঘশ্বাস" ফেলেন এবং সাহায্য প্রাপ্তির জন্য ছটফট করেন, যেন তিনি বিশ্বাস করেন কাছাকাছি একটি শক্তিশালী অস্তিত্ব আছে, যে তাকে সাহায্য করতে পারে।
পবিত্র কুরআন সর্বদা তার শিক্ষাগুলিকে এমনভাবে উপস্থাপন করে যা অনেক লোক ঘটনাক্রমে অভিজ্ঞতার মাধ্যমে বুঝতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ, একজন মানুষের অবস্থা যে মহান আল্লাহর অস্তিত্বকে অস্বীকার করে, কিন্তু কখনও কখনও আল্লাহ তাকে এমন পরিস্থিতিতে ফেলেন যেখানে সে যুক্তি সম্পূর্ণ করার জন্য বা মানুষের প্রতিফলন এবং চিন্তার জন্য লক্ষণ দেখাতে অনিবার্যভাবে ভিন্নভাবে চিন্তা করে। সূরা ইউনুসের ২২ এবং ২৩ আয়াত এই পরিস্থিতির চিত্র তুলে ধরেছে: 
 
«هوَ الَّذِي يُسَيِّرُكُمْ فِي الْبَرِّ وَالْبَحْرِ حَتَّى إِذَا كُنْتُمْ فِي الْفُلْكِ وَجَرَيْنَ بِهمْ بِرِيحٍ طَيِّبَةٍ وَفَرِحُوا بِها جَاءَتْها رِيحٌ عَاصِفٌ وَجَاءَهمُ الْمَوْجُ مِنْ كُلِّ مَكَانٍ وَظَنُّوا أَنَّهمْ أُحِيطَ بِهمْ دَعَوُا اللَّه مُخْلِصِينَ لَه الدِّينَ لَئِنْ أَنْجَيْتَنَا مِنْ هذِه لَنَكُونَنَّ مِنَ الشَّاكِرِينَ * فَلَمَّا أَنْجَاهمْ إِذَا همْ يَبْغُونَ فِي الْأَرْضِ بِغَيْرِ الْحَقِّ يَا أَيُّها النَّاسُ إِنَّمَا بَغْيُكُمْ عَلَى أَنْفُسِكُمْ مَتَاعَ الْحَيَاةِ الدُّنْيَا ثُمَّ إِلَيْنَا مَرْجِعُكُمْ فَنُنَبِّئُكُمْ بِمَا كُنْتُمْ تَعْمَلُونَ
(২২) তিনি সেই সত্তা যিনি তোমাদের স্থলে ও সমুদ্রে পরিভ্রমণ করান। এমনকি যখন তোমরা তরণীতে অবস্থান কর এবং তা মৃদুমন্দ বাতাসের সাহায্যে তাদের নিয়ে চলে, আর তারা এতে আনন্দিত হয়, (সহসা) তাতে (তরণীতে) ঝটিকার আঘাত লাগে এবং সবদিক হতে তাদের ওপর ঢেউ আছড়ে পড়তে লাগল এবং তাদের দৃঢ় ধারণা হল যে, তারা তা দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে পড়েছে, তখন তারা ধর্মকে আল্লাহর জন্য বিশুদ্ধ করে একনিষ্ঠভাবে তাঁকে আহ্বান করে (এ বলে) যে, “তুমি আমাদের এ (বিপদ) থেকে উদ্ধার করলে আমরা অবশ্যই কৃতজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত হব।“ 
* অতঃপর যখন তিনি (আল্লাহ) তাদের পরিত্রাণ দিলেন তখনই তারা অন্যায়ভাবে দেশে বিদ্রোহ করতে থাকে। হে মানবমণ্ডলী! (স্মরণ রাখ,) পার্থিব জীবনের ভোগ সামগ্রীর জন্য তোমাদের বিদ্রোহ তোমাদের বিরুদ্ধেই যাবে। অতঃপর তোমাদের সকলের প্রত্যাবর্তন আমাদের দিকেই হবে, তখন আমরা তোমাদের জানিয়ে দেব যা কিছু তোমরা করতে।
সূরা ইউনূস, আয়াত: ২২ ও ২৩। 
"তাফসিরে নূর"-এ আয়াতুল্লাহ মোহসেন ক্বারায়াতী এই আয়াত সম্পর্কে ব্যক্ত করেছেন:
১। যে আইনগুলি প্রকৃতিকে নিয়ন্ত্রণ করে সেগুলি সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহ “هوَ الَّذِي يُسَيِّرُكُمْ“: “তিনি তোমাকে চালিত করেন।”
২। মানুষের কাজও মহান আল্লাহর সাথে সম্পর্কিত, কারণ মূল শক্তি তাঁরই। যদিও সকল কর্মের এখতিয়ার মানুষকে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই আয়াতে বলা হয়েছে: “هوَ الَّذِي يُسَيِّرُكُمْ“: “তিনি তোমাকে চালিত করেন।”
৩। মানুষ যতই উন্নতি করুক না কেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবল থেকে সে নিরাপদ নয়। جاءَتْها رِيحٌ عاصِفٌ : "হঠাৎ তাদের উপর একটি শক্তিশালী বাতাস বয়ে যায়।"
৪। ধনী ব্যক্তিদের মনে করা উচিত নয় যে তারা ক্রমাগত সমৃদ্ধ হবে। فَرِحُوا بِها... أُحِيطَ بِهمْ আর তারা এতে আনন্দিত হয়,...  তারা তা দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে পড়েছে। 
৫। প্রাকৃতিক দুর্যোগ মানুষকে অহংকার থেকে দূরে রাখে এবং তাকে আল্লাহর সামনে বিনীত করে। دَعَوُا اللَّه: আল্লাহকে ডাকে। 
৬। বিপদের সময়, মানব প্রকৃতি পরিত্রাণের উৎস উপলব্ধি করে। دَعَوُا اللَّه مُخْلِصِينَ "তারা আন্তরিক ও একনিষ্ঠভাবে আল্লাহকে ডাকে।"
৭। বিশ্বাস এবং আন্তরিকতা স্থায়ী হওয়া উচিত, মৌসুমী নয়। أُحِيطَ بِهمْ دَعَوُا اللَّه مُخْلِصِينَ তারা তা দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে পড়েছে, তখন তারা ধর্মকে আল্লাহর জন্য বিশুদ্ধ করে একনিষ্ঠভাবে তাঁকে আহ্বান করে।
৮। মানুষ বিপদের সময় প্রতিশ্রুতি দেয়, কিন্তু যখন সে মুক্তিপ্রাপ্ত হয়, তখন সে অবহেলা করে। لَئِنْ أَنْجَيْتَنا "আপনি যদি আমাদের রক্ষা করেন।"
৯। অকৃতজ্ঞতা ও নেয়ামতের প্রতি অবিশ্বাস কষ্ট ও আযাবের অন্যতম কারণ। لَئِنْ أَنْجَيْتَنا مِنْ هذِه لَنَكُونَنَّ مِنَ الشَّاكِرِينَ “তুমি আমাদের এ (বিপদ) থেকে উদ্ধার করলে আমরা অবশ্যই কৃতজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত হব।“
  •  তাফসির নুর হল ১২ খণ্ডের একটি তাফসির গ্রন্থ। ইরানের বিশিষ্ট আলেম ও কুরআনের শিক্ষক আয়াতুল্লাহ মোহসেন ক্বারায়াতী এই তাফসির গ্রন্থটি লিখেছেন। তিনি ১৯৫৯ সালে ইরানের কাশান শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি অত্যন্ত সহজ ভাষায় কুরআনের আয়াতসমূহ ব্যাখ্যা করে থাকেন।

 

সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* :