IQNA

কুরআনের সূরাসমূহ/১৬

সূরা নাহল; অগণিত খোদায়ী নেয়ামতের ব্যাখ্যা

19:14 - July 06, 2022
সংবাদ: 3472094
তেহরান (ইকনা): আমাদের চারপাশে খোদায়ী নেয়ামতে পরিপূর্ণ। কিছু কিছু লোক এসকল নেয়ামত সম্পর্কে চিন্তা করে এবং কিছু লোক নেয়ামতগুল উপেক্ষা করে। সূরা নাহল এই কিছু খোদায়ী নেয়ামতের কথা উল্লেখ করে মানুষের আধ্যাত্মিক উন্নতির জন্য এই বিষয়গুলো নিয়ে চিন্তা করার আমন্ত্রণ জানায়।
সূরা নাহল কুরআনের ১৬তম সূরা এবং একটি মাক্কী সূরার অন্তর্গত। এই সূরায় মোট ১২৮টি আয়াত রয়েছে এবং এটি পবিত্র কুরআনের ১৪তম পারায় অবস্থিত। নাযিলের ক্রমানুসারে এটি ৭০তম সূরা যা প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)এর উপর নাযিল হয়েছে। 
 
এই সূরাটির সবচেয়ে প্রসিদ্ধ নাম “নাহল”। এই নামের কারণ হল এই সূরার ৬৮ নম্বর আয়াতে নাহল (মৌমাছি) উল্লেখ করা হয়েছে। অবশ্য এই সূরায় অনেক নেয়ামতের কথা বলা হয়েছে। এছাড়াও এতে মৌমাছির মধুর একটি সংক্ষিপ্ত, অর্থবহ এবং আশ্চর্যজনক কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এই কীটপতঙ্গের কিছু বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করা হয়েছে এবং অন্যান্য আবিষ্কারের বিষয়গুলো শ্রোতা ও পাঠকবর্গের জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
 
সূরা নাহলের মূল কেন্দ্রবিন্দুতে আল্লাহর নেয়ামতের উল্লেখ করা হয়েছে। এই নেয়ামতের মধ্যে রয়েছে বৃষ্টি, সূর্যের আলো, সব ধরনের গাছপালা ও ফলমূল, খাদ্য ও গবাদিপশু। এই সূরায় আয়াতের উপর ভিত্তি করে আল্লাহর নেয়াতসমূহ ৫টি উদ্দেশ্যের সাথে প্রকাশ করা হয়েছে: কৃতজ্ঞতা, হেদায়েত, চিন্তাভাবনা, সর্তের আহ্বানে আত্মসমর্পণ করা এবং অনুস্মারক।
 
এই সূরার আরেকটি অংশ বিভিন্ন ইসলামিক বিধি-বিধানের অভিব্যক্তির জন্য নিবেদিত, যেমন ন্যায়বিচারের আদেশ, দানশীলতা, হিজরত, জিহাদ, এবং ব্যভিচারের ক্ষেত্রে নিষেধ, মন্দ কাজে নিষেধ, নিপীড়ন এবং চুক্তি ভঙ্গের নিষেধাজ্ঞা।। তাঁর আশীর্বাদের জন্য কৃতজ্ঞ, এবং এ প্রসঙ্গে একেশ্বরবাদের নায়ক ইব্রাহিমকে বেশ কয়েকটি আয়াতে কৃতজ্ঞ বান্দা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। মদ, মৃত মাংস, শুকরের মাংস এবং রক্ত খাওয়া হারাম যা এই সূরার উল্লেখ করা হয়েছে এবং এগুলোকে হারাম হিসেবে গণ্য করা এই সূরায় উল্লেখিত বাস্তবিক বিধানগুলির মধ্যে একটি।
 
এই সূরায় উল্লেখিত আরেকটি বিষয় হল শনিবারকে সম্মান করার জন্য ইহুদিদের বাধ্যবাধকতা। ১২৪ নং আয়াতে এই বিষয়টির উপর জোর দেওয়া হয়েছে। এই আয়াত অনুসারে আল্লাহ শনিবারকে ইহুদিদের জন্য বিশ্রামের দিন হিসাবে নির্ধারণ করেছিলেন।  এই আয়াতে বলা হয়েছে: “শনিবার দিবস (এর প্রতি সম্মান প্রদর্শন) তো কেবল তাদের জন্য নির্ধারিত হয়েছিল যারা এ ব্যাপারে মতানৈক্য করেছিল; এবং নিশ্চয় তোমার প্রতিপালক তাদের মধ্যে কিয়ামত দিবসে ঐ বিষয়ে মীমাংসা করবেন যে বিষয়ে তারা মতভেদ করত।“
 
যদিও কিছু ইহুদী এই আদেশের প্রতি কৃতজ্ঞ এবং আনুগত্য করেছিল, কিছু লোক এই ঐশ্বরিক আদেশ অমান্য করেছিল এবং তাদের উপর আল্লাহর শাস্তি বর্ষিত হয়েছিল।

 

সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
captcha