IQNA

কুরআনের সূরাসমূহ/৭

সুরা আরাফ; মহান আল্লাহর প্রতি মানুষের অবিশ্বস্ততার চিত্র

20:02 - June 05, 2022
সংবাদ: 3471949
তেহরান (ইকনা): মানুষ ও মহাবিশ্বের সৃষ্টি সম্পর্কে বিভিন্ন ধারণা ও তত্ত্ব প্রকাশ করা হয়েছে, তবে ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে, মহান আল্লাহ একটি নির্দিষ্ট সময়ে সমগ্র মহাবিশ্ব এবং মানুষ সৃষ্টি করেছেন। এছাড়াও ইসলামের দৃষ্টিতে, মানুষ পৃথিবীতে মহান আল্লাহর উত্তরাধিকারী হওয়ার জন্য সৃষ্টির পূর্বে আল্লাহ তায়ালার সাথে একটি চুক্তি করেছে।
পবিত্র কুরআনের সপ্তম সূরা হচ্ছে সূরা "আরাফ" যা কুরআনের অষ্টম এবং নবম পারায় রয়েছে। এই সূরায় মোট ২০৬টি আয়াত রয়েছে। মুসলমানদের সবচেয়ে কঠিন পরিস্থিতিতে অর্থাৎ মক্কার অর্থনৈতিক অবরোধের সময় নবী করিম (সা.) কাছে সূরা আরাফ নাযিল হয়েছিল।
 
সূরা আরাফ একটি মাক্কী সূরা। এই সূরায় সৃষ্টির বিষয়, একেশ্বরবাদের প্রমাণ, বহুদেবতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম এবং সৃষ্টি জগতে মানুষের অবস্থানের প্রকাশ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এই সূরায় যেহেতু সৃষ্টির সূচনা চিত্রিত হয়েছে, তাই এই সূরাটি মানুষকে তার চুক্তির কথা মনে করিয়ে দেয়, যা সে সৃষ্টির শুরু থেকেই মহান আল্লাহর সাথে করেছে। এছাড়াও, একেশ্বরবাদের পথ থেকে বিচ্যুতির ফলাফল দেখানোর জন্য, এই সূরায় হযরত নূহ (আ.), হযরত লুত (আ.) এবং হযরত শোয়েব (আ.)-এর মতো পূর্ববর্তী গোত্র ও নবীদের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।
 
সূরা আরাফের মূল বিষয়গুলি নিম্নরূপ তুলে ধলা হল:
 
মানুষের সৃষ্টি
এই সূরায় প্রথম দুই মানব আদম ও হাওয়ার সৃষ্টি, শয়তানের কাছ থেকে তাদের প্রতারণা এবং জান্নাত থেকে তাদের প্রস্থান এবং কীভাবে তারা পৃথিবীতে তাদের জীবন শুরু করেছিল সে সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে।
 
কুরআনের সঙ্গে অন্তরঙ্গ সম্পর্ক
এই সূরায় পবিত্র কুরআনকে বিশ্ববাসীর প্রতি আল্লাহর বিশেষ দিকনির্দেশনা ও বিশেষ করুণার জন্য একটি ঐশী গ্রন্থ হিসেবে উল্লেখ করেছেন এবং বিচার দিবসকে কুরআনের ব্যাখ্যার আবির্ভাবের দিন হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে।
 
পৃথিবী ও আকাশ সৃষ্টির সূচনা
এই সূরার অন্য অংশে আকাশমন্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টির সূচনাকে চিহ্নিত করে এবং তাদের প্রভুর সাপেক্ষে মানুষের পথপ্রদর্শন ও পথভ্রষ্টতা নির্ধারণ করা হয়েছে।
 
হযরত মুসা (আ.) এর কাহিনী
এই সূরায় হযরত মুসা (আ.) এর কাহিনীও বিস্তারিতভাবে বর্ণিত হয়েছে। প্রথমে হযরত মুসা (আ.) এবং ফেরাউনের মধ্যে সংঘটিত ঘটনাগুলি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে এবং তারপর মূসা (আ.)-এর সাথে বনী ইসরাইলের আচরণ বর্ণনা করা হয়েছে।
 
ঐশ্বরিক চুক্তি
সূরা আরাফে মানুষ এবং মহান আল্লাহর মধ্যে প্রণীত চুক্তির কথাও স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে। মানুষকে তার শিরক ও বিশ্বাসের জন্য দায়ী হিসাবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং এই বিষয়ে মানুষকে পথ দেখানোর জন্য নবীদের প্রচেষ্টার কথা বলা হয়।
 
আখিরাত
বিচার দিবসের বিষয় এই সূরায় উল্লেখিত আরেকটি বিষয়; এই বিষয়টি এমন একটি বিষয় যা সম্পর্কে মহান আল্লাহ ছাড়া অন্য কেউ জানে না।
 
 
 
 
 
সংশ্লিষ্ট খবর
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য:
* :